ঢাকা ০৬:১৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বালাগঞ্জের হাফিজ মাওলানা সামসুল ইসলাম লন্ডনের university of central Lancashire থেকে মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করলেন বালাগঞ্জে সাংবাদিকদের সাথে উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হাজী রফিক আহমদ এর মতবিনিময় দেওয়ানবাজার ইউপি চেয়ারম্যান নাজমুল আলমের পক্ষ থেকে বন্যার্তদের মাঝে খাবার বিতরণ জনকল্যাণ ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশন ইউকের পক্ষ থেকে উপহার সামগ্রী বিতরণ প্যারিসে অনুষ্ঠিত হলো, ‘রৌদ্র ছায়ায় কবি কন্ঠে কাব্য কথা’ শীর্ষক কবিতায় আড্ডা ফ্রান্স দর্পণ – কমিউনিটি-সংবেদনশীল মুখপত্র এম সি ইন্সটিটিউট ফ্রান্সের সুধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত বিএনপি চেয়ারপারসনের “স্পেশাল এসিস্ট্যান্ট টু দ্য ফরেন এফেয়ার্স” উপদেষ্টা হলেন হাজি হাবিব ইপিএস কমিউনিটি ফ্রান্সের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হলো ‘ফেত দ্যো লা মিউজিক ২০২৪ তরুণ উদ্যোক্তা মাসুদ মিয়া-আয়ুব হাসানের যৌথ প্রয়াসের প্রতিষ্ঠান পিংক সিটি

অকাস চুক্তি: যুক্তরাষ্ট্র ও বৃটেন থেকে রাষ্ট্রদূতদের তলব করেছে ফ্রান্স

  • আপডেট সময় ০৬:১৯:০৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • ১১৯ বার পড়া হয়েছে

Warning: Attempt to read property "post_excerpt" on null in /home/u305720254/domains/francedorpan.com/public_html/wp-content/themes/newspaper-pro/template-parts/common/single_two.php on line 117

যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে অকাস নামের নিরাপত্তা চুক্তি নিয়ে তীব্র ক্ষোভ দেখা দিয়েছে ফ্রান্সে। তারা যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত নিজেদের রাষ্ট্রদূতদের দেশে তলব করেছে। অকাস চুক্তির মধ্য দিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে পারমাণবিক শক্তিচালিত সাবমেরিন নির্মাণের প্রযুক্তি হস্তান্তর করতে রাজি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ফলে এর আগে ফ্রান্সের সঙ্গে ১২ টি সাবমেরিন নির্মাণের জন্য ৫০০০ কোটি ডলারের যে চুক্তি করেছিল, তা বাতিল করে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। এতে ভীষণ ক্ষেপেছে ফ্রান্স। তারা এ ঘটনাকে পিছন থেকে ছুরি মারা বলে আখ্যায়িত করেছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি।
উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও বৃটেনের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়া যে অকাস চুক্তি করেছে তাকে দেখা হচ্ছে দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের প্রভাব বিস্তারের পাল্টা হিসেবে।বুধবার এ চুক্তির ঘোষণা দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এবং অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। এ ঘোষণা দেয়ার মাত্র কয়েক ঘন্টা আগে এ বিষয়ে ফ্রান্সকে জানানো হয়। ফলে এই চুক্তিকে পিছন থেকে ছুরি মারা হিসেবে বর্ণনা করেছেন ফরাসি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জ্যাঁ-ইয়েভস লা দ্রিয়ান। তিনি শুক্রবার বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রনের অনুরোধে যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত ফরাসি রাষ্ট্রদূতদের তলব করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, অকাস চুক্তি মিত্র ও অংশীদারদের মধ্যে সম্পর্কের ক্ষেত্রে অগ্রহণযোগ্য একটি চুক্তি। এতে সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত হবে জোট, আমাদের অংশীদারিত্ব এবং ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে ইউরোপের গুরুত্ব।
এমন অবস্থায় ফ্রান্সের আপত্তি আমলে নিয়েছে বাইডেন প্রশাসন। হোয়াইট হাউজের এক কর্মকর্তা বলেছেন, অকাস উদ্যোগ নিয়ে অনুশোচনা প্রকাশ করেছে বাইডেন প্রশাসন। শিগগিরই তাদের মধ্যকার মতবিরোধ মিটিয়ে ফেলা হবে। ওয়াশিংটনে অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মারিজ পাইনে বলেন, তারা ফ্যান্সের হতাশার বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন। একই সঙ্গে তাদের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের মর্যাদা অক্ষুন্ন রেখে কাজ করার আশা প্রকাশ করেছেন।
কিন্তু মিত্র দেশগুলোর মধ্যে রাষ্ট্রদূতকে তলব করা অতি মাত্রায় অস্বাভাবিক বিষয়। মনে করা হচ্ছে প্রথমবারের মতো এই দুটি দেশ থেকে রাষ্ট্রদূতদের তলব করেছে ফ্রান্স। এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সের মধ্যে সম্পর্কের একটি সেলিব্রেশন গালা অনুষ্ঠান বাতিল করেছেন ফরাসি রাষ্ট্রদূত। ওই অনুষ্ঠান হওয়ার কথা শুক্রবার।
উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে পুরনো মিত্র প্যারিস। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে এই চুক্তি করার বিষয়ে তাদেরকে অন্ধকারে রাখার কারণে চরম ক্ষোভ দেখা দিয়েছে ফ্রান্সে। কারণ, এতে বড় অংকের একটি অর্থনৈতিক আঘাত আসবে ফ্রান্সে। ফরাসি কর্মকর্তারা বলেছেন, চুক্তি ঘোষণার মাত্র কয়েক ঘন্টা আগে তারা এ বিষয়ে জানতে পেরেছেন। তাদেরকে বলা হয়েছে, এটা হলো নতুন একটি নিরাপত্তা বিষয়ক চুক্তি। যা বৃটেনসহ তিনটি দেশের মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। এ বিষয়টি ফ্রান্সের কাছে পুরোপুরি বিস্ময়। বিবিসি লিখেছে, রাষ্ট্রদূতদের এভাবে তলব করা সম্ভবত অপ্রত্যাশিত সিদ্ধান্ত। হোয়াইট হাউজের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে পুরনো মিত্র ফ্রান্স। দুই দেশের মতবিরোধ সমাধানের জন্য সামনের দিনগুলোতে ফ্রান্সের সঙ্গে যোগাযোগ করবে ওয়াশিংটন।

মতামত দিন

অন্যান্য খবর

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত। ফোন : ৮১৮৯১৬০-৬৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০ ই-মেইল: news@emanabzamin.com

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

লক ডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

যুক্তরাজ্যে করোনার মধ্যেই শিশুদের মাঝে নতুন রোগের হানা

বালাগঞ্জের হাফিজ মাওলানা সামসুল ইসলাম লন্ডনের university of central Lancashire থেকে মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করলেন

অকাস চুক্তি: যুক্তরাষ্ট্র ও বৃটেন থেকে রাষ্ট্রদূতদের তলব করেছে ফ্রান্স

আপডেট সময় ০৬:১৯:০৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে অকাস নামের নিরাপত্তা চুক্তি নিয়ে তীব্র ক্ষোভ দেখা দিয়েছে ফ্রান্সে। তারা যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত নিজেদের রাষ্ট্রদূতদের দেশে তলব করেছে। অকাস চুক্তির মধ্য দিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে পারমাণবিক শক্তিচালিত সাবমেরিন নির্মাণের প্রযুক্তি হস্তান্তর করতে রাজি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ফলে এর আগে ফ্রান্সের সঙ্গে ১২ টি সাবমেরিন নির্মাণের জন্য ৫০০০ কোটি ডলারের যে চুক্তি করেছিল, তা বাতিল করে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। এতে ভীষণ ক্ষেপেছে ফ্রান্স। তারা এ ঘটনাকে পিছন থেকে ছুরি মারা বলে আখ্যায়িত করেছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি।
উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও বৃটেনের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়া যে অকাস চুক্তি করেছে তাকে দেখা হচ্ছে দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের প্রভাব বিস্তারের পাল্টা হিসেবে।বুধবার এ চুক্তির ঘোষণা দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এবং অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। এ ঘোষণা দেয়ার মাত্র কয়েক ঘন্টা আগে এ বিষয়ে ফ্রান্সকে জানানো হয়। ফলে এই চুক্তিকে পিছন থেকে ছুরি মারা হিসেবে বর্ণনা করেছেন ফরাসি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জ্যাঁ-ইয়েভস লা দ্রিয়ান। তিনি শুক্রবার বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রনের অনুরোধে যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত ফরাসি রাষ্ট্রদূতদের তলব করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, অকাস চুক্তি মিত্র ও অংশীদারদের মধ্যে সম্পর্কের ক্ষেত্রে অগ্রহণযোগ্য একটি চুক্তি। এতে সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত হবে জোট, আমাদের অংশীদারিত্ব এবং ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে ইউরোপের গুরুত্ব।
এমন অবস্থায় ফ্রান্সের আপত্তি আমলে নিয়েছে বাইডেন প্রশাসন। হোয়াইট হাউজের এক কর্মকর্তা বলেছেন, অকাস উদ্যোগ নিয়ে অনুশোচনা প্রকাশ করেছে বাইডেন প্রশাসন। শিগগিরই তাদের মধ্যকার মতবিরোধ মিটিয়ে ফেলা হবে। ওয়াশিংটনে অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মারিজ পাইনে বলেন, তারা ফ্যান্সের হতাশার বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন। একই সঙ্গে তাদের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের মর্যাদা অক্ষুন্ন রেখে কাজ করার আশা প্রকাশ করেছেন।
কিন্তু মিত্র দেশগুলোর মধ্যে রাষ্ট্রদূতকে তলব করা অতি মাত্রায় অস্বাভাবিক বিষয়। মনে করা হচ্ছে প্রথমবারের মতো এই দুটি দেশ থেকে রাষ্ট্রদূতদের তলব করেছে ফ্রান্স। এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সের মধ্যে সম্পর্কের একটি সেলিব্রেশন গালা অনুষ্ঠান বাতিল করেছেন ফরাসি রাষ্ট্রদূত। ওই অনুষ্ঠান হওয়ার কথা শুক্রবার।
উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে পুরনো মিত্র প্যারিস। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে এই চুক্তি করার বিষয়ে তাদেরকে অন্ধকারে রাখার কারণে চরম ক্ষোভ দেখা দিয়েছে ফ্রান্সে। কারণ, এতে বড় অংকের একটি অর্থনৈতিক আঘাত আসবে ফ্রান্সে। ফরাসি কর্মকর্তারা বলেছেন, চুক্তি ঘোষণার মাত্র কয়েক ঘন্টা আগে তারা এ বিষয়ে জানতে পেরেছেন। তাদেরকে বলা হয়েছে, এটা হলো নতুন একটি নিরাপত্তা বিষয়ক চুক্তি। যা বৃটেনসহ তিনটি দেশের মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। এ বিষয়টি ফ্রান্সের কাছে পুরোপুরি বিস্ময়। বিবিসি লিখেছে, রাষ্ট্রদূতদের এভাবে তলব করা সম্ভবত অপ্রত্যাশিত সিদ্ধান্ত। হোয়াইট হাউজের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে পুরনো মিত্র ফ্রান্স। দুই দেশের মতবিরোধ সমাধানের জন্য সামনের দিনগুলোতে ফ্রান্সের সঙ্গে যোগাযোগ করবে ওয়াশিংটন।

মতামত দিন

অন্যান্য খবর

প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী
জেনিথ টাওয়ার, ৪০ কাওরান বাজার, ঢাকা-১২১৫ এবং মিডিয়া প্রিন্টার্স ১৪৯-১৫০ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা-১২০৮ থেকে মাহবুবা চৌধুরী কর্তৃক সম্পাদিত ও প্রকাশিত। ফোন : ৮১৮৯১৬০-৬৩ ফ্যাক্স : ৮১২৮৩১৩, ৫৫০১৩৪০০ ই-মেইল: news@emanabzamin.com