ঢাকা ০৮:৫৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ইতালির আরেচ্ছোতে বর্ণাঢ্য একুশে মেলা: মুসলিম কমিউনিটির কবরস্থান বাস্তবায়নের দাবী ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়াবে বাংলাদেশ দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশন: ফিলিস্তিন ও বাংলাদেশ দূতাবাসে বিশেষ বৈঠক মামুন হাওলাদার প্রবাসে বাংলার সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ধরে রাখার লক্ষ্যে রোমে বৃহত্তম ঢাকাবাসীর পিঠা উৎসব নতুন তত্ত্ব ও জ্ঞান সৃষ্টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল উদ্দেশ্যঃ ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক ফ্রান্স দর্পণ পত্রিকার সম্পাদকের ভাইয়ের মৃত্যুতে প্যারিসে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ইপিএস কমিউনিটি ইন ফ্রান্স এর উদ্যোগে মহান বিজয় দিবস পালিত গ্লোবাল জালালাবাদ এসোসিয়েশন ফ্রান্সের নবগঠিত কমিটির আত্মপ্রকাশ ফরাসি নাট্যমঞ্চে বাংলাদেশি শোয়েব বালাগঞ্জে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত রুপালী ব্যাংক লিমিটেড সুলতানপুর শাখার উদ্যোগে প্রকাশ্যে কৃষি ও পল্লী ঋণ বিতরণ অনুষ্ঠিত

এন টিভি’র টকশোতে প্রচারিত বক্তব্য প্রসঙ্গে এম এ মালেকের ব্যাখ্যা

  • আপডেট সময় ১০:১২:৪৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ এপ্রিল ২০১৮
  • ৩৩০ বার পড়া হয়েছে

অনেকেই তাদের মতামত প্রকাশ করে আমার দৃষ্ঠি আকর্ষন করেছেন ।

এ প্রসঙ্গে আমার বক্তব্য হলো :

আমি রাম বা কৃষ্ণকে নবী মনে করিনা এবং আমার বক্তব্যে এ ধরনের

কোন উদ্দেশ্যও ছিলোনা । কিন্তু আমার বক্তব্যের মাঝখানে টকশো পরিচালকের

হস্তক্ষেপ ও প্রতিপক্ষ আলোচক আমাদেরকে কাফের বলায় আমি এর জবাব দিতে গিয়ে কিছুটা আবেগপ্রবণ ও উত্তেজিত হয়ে যাওয়ায় আমি যে উদ্দেশ্যে কথা শুরু করেছিলাম সেভাবে শেষ করতে পারিনি । ফলে দুটি ভিন্ন প্রসঙ্গ একত্রিত হয়ে কথা অসমাপ্ত অবস্থায় টকশো বন্ধ হয়ে যায় । ফলে আমি পূর্ণাঙ্গ রুপে আমার বক্তব্য উপস্থাপন করতে পারিনি ।

আমি মূলত বলতে যাচ্ছিলাম ‘হরে কৃষ্ণ হরে রাম’

শ্লোগান যেটা দেয়া হয়েছে এটা সনাতন ধর্মের অনুসারীদের জন্য অফেন্সিভ কিছু নয় । কারন গত ক’দিন থেকেই শেখ হাসিনার লন্ডন সফর করা কালে যুক্তরাজ্য বি এনপি’র প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশের একটি শ্লোগানকে কেন্দ্র করে তারা বলতে চেয়েছেন এটা সনাতন ধর্মাবলম্বনকারীদের প্রতি অবমাননা ও অফেন্সিভ ।এর ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে আমি বলেছি এটা মোটেই অফেন্সিভ নয় । বরং তারা যখন বলেন ,’হরে রাম হরে কৃষ্ণ ‘ তখন তারা মূলত বলেন ,’ধন্য রাম ধন্য কৃষ্ণ ‘ একথাটা কেউ উচ্চারন করলে এটা তাদের প্রতি অবমাননা করা বুঝায়না ।বরং এটা তাদের জন্য প্রাউড এরই বিষয় ।

উদাহরণ স্বরুপ আমি বলেছি ,যেমন আমরা যখন বলি আল্লাহ! আল্লাহ! ( তখন আমরা আল্লাহর প্রতি আমাদের সর্বোচ্চ সম্মান এবং ভালবাসাই প্রকাশ করি )।

তখন টকশো’র সন্চালক আমার অসমাপ্ত কথাকে ইন্টারাপ্ট করে বলেন :

‘ তা হলে কি আপনি প্রাউড হয়ে বলছেন কথাটা ?’

এ প্রশ্নে তিনি কথার মোড় ঘুরিয়ে পূর্বের

‘হরে কৃষ্ণ হরে রামে’র দিকে নিয়ে যেতে চান ।

কিন্তু আমি কথাকে সে দিকে নিয়ে যেতে দিতে চাইনি ।

প্রতিপক্ষের একজন আমাদেরকে উদ্দেশ্য করে ‘কাফির’ বলায় তাদের এই হাস্যকর কথাকে তাদের প্রতি ফিরিয়ে দিয়ে আমি আমার কথাকে অব্যাহত রাখি এবং বলি :

‘অফকোর্স প্রাউড । দিস ইজ প্রাউড ।’

অর্থাৎ আল্লাহ আল্লাহ বলা প্রাউডের বিষয় ।

কারন কেউ যদি বলে আল্লাহ !আল্লাহ ! তাহলে একটা মুসলমান প্রাউড হওয়া উচিত ।’

তার পর আমি এ প্রসংগে আমার বিশ্বাসের

পূণরুচ্চারন করে বলি :

” বিকজ শেষ নবী হুজুর পাক স:।

এর আগে এক লক্ষ চব্বিশ হাজার পয়গাম্বর ছিলেন ।

আদম আ: থেকে শেষ নবী আল্লাহর রাসূল স: কে মানি ।”

এ পর্যন্তই আমার মূল কথা ।

কিন্তু উপস্থাপকের ইন্টারাপসনে আমার কথাকে ঘুরিয়ে ফেলার চেষ্ঠার একটা রেশ আমার মধ্যে থেকে যায় । ফলে আমার পরবর্তী বাক্যে

কথায় একটু উপস্থাপন বিপত্তি ঘটে এবং ‘রাম কৃষ্ণ’ প্রসংগ

মাঝখানে ঢুকে পড়ে । এটা উপস্থিত অবস্থায় আমার স্লিপ অফ টাং এর কারনে ঘটেছে ।

আমার ঈমান এবং আমার স্বীকৃতি ঐটাই যা আমি উপরে ব্যক্ত করেছি । রাম এবং কৃষ্ণকে নবীদের সাথে তুলনা করার

কোন উদ্দেশ্য ছিলনা বা এর প্রশ্নই উঠে না ।

আমি সবাইকে বক্তব্যের শেষ অংশ খেয়াল করে শুনতে বিণীত অনুরোধ করবো ।

শেষদিকে প্রতিপক্ষের খসরুজ্জামান সাহেব ইন্টারাপ্ট করে বলেন : ‘ আপনি কি নবী রাসুলের সাথে রাম কৃষ্ণের…..

(তুলনা করতে চেয়েছেন ?) তার কথা শেষ হয়নি।

আমার শেষ বাক্যটা খেয়াল করলে স্পষ্ঠ শুনতে পাবেন :

আমি খসরুজ্জামা সাহেবের কথায় ইন্টারাপ্ট করে বলেছি:

‘না না ভাই……. ।’

আমি খসরুজ্জামান সাহেবের প্রশ্নের বিষয়টাও পরিষ্কার করতে চেয়েছিলাম । কিন্তু কথা কেটে যাওয়ায় তা কিছুটা

অ সমাপ্ত থেকে যায় ।

আমি খসরুজ্জামান সাহেবকে আমার কাছে ক্লিয়ারিফিকেসন দাবী করায় ধন্যবাদ জানাই ।

কারন এর ফলে আমি ‘না না ভাই ‘বলে আমার মূল কথাটা তুলে ধরতে পেরেছি।

এ প্রসংগে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে , মন্তব্য করে এবং আমাকে ব্যক্তিগত ম্যাসেজ ও ফোন করে অনেকে দৃষ্ঠি আকর্ষন করেছেন । এ জন্য আমি সকলের কাছে কৃতজ্ঞ ।

আমি মনে করি , এ রকম সচেতন জিন্দাদিল প্রতিবাদী ঈমানদার যে সমাজে আছে আমি সে সমাজের একজন নগন্য নাগরিক হতে পেরে নিজে গৌরব বোধ করি ও আমার ঈমানকে অনেক নিরাপদ মনে করি ।

তবু আমি বলি মানুষ ভূলের উর্ধে নয় । আমারও এক প্রসংগের সাথে আরেক প্রসংগের ঢুকে পড়াকে নিয়ন্ত্রন করা উচিত ছিল । আমি দুনিয়ার সব কিছুর উর্ধে আমার ঈমানকে স্থান দেই । এবং জ্ঞানবান ও সম্মানিত

উলামায়ে কেরামের নিকট থেকে শিখতে চেষ্ঠা করি ।

আমি আমার বক্তব্যের শেষাংসের

‘ রাম বলেন কৃষ্ণ বলেন ‘ বাক্য দ্বয়কে প্রত্যাহার করছি।

এবং এর জন্য আমি মহান আল্লাহর নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করছি ।

ফেসবুক এবং অন্নান্য মিডিয়ায় আমার যে ভিডিও বক্তব্য

প্রচারিত হয়েছে আমার উপরোক্ত ব্যাখ্যার পর ভিডিওটি একটু কষ্ঠ করে আবার দেখে মিলিয়ে নিতে সবার প্রতি বিণীত অনুরোধ করছি ।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

লক ডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

যুক্তরাজ্যে করোনার মধ্যেই শিশুদের মাঝে নতুন রোগের হানা

ইতালির আরেচ্ছোতে বর্ণাঢ্য একুশে মেলা: মুসলিম কমিউনিটির কবরস্থান বাস্তবায়নের দাবী

এন টিভি’র টকশোতে প্রচারিত বক্তব্য প্রসঙ্গে এম এ মালেকের ব্যাখ্যা

আপডেট সময় ১০:১২:৪৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ এপ্রিল ২০১৮

অনেকেই তাদের মতামত প্রকাশ করে আমার দৃষ্ঠি আকর্ষন করেছেন ।

এ প্রসঙ্গে আমার বক্তব্য হলো :

আমি রাম বা কৃষ্ণকে নবী মনে করিনা এবং আমার বক্তব্যে এ ধরনের

কোন উদ্দেশ্যও ছিলোনা । কিন্তু আমার বক্তব্যের মাঝখানে টকশো পরিচালকের

হস্তক্ষেপ ও প্রতিপক্ষ আলোচক আমাদেরকে কাফের বলায় আমি এর জবাব দিতে গিয়ে কিছুটা আবেগপ্রবণ ও উত্তেজিত হয়ে যাওয়ায় আমি যে উদ্দেশ্যে কথা শুরু করেছিলাম সেভাবে শেষ করতে পারিনি । ফলে দুটি ভিন্ন প্রসঙ্গ একত্রিত হয়ে কথা অসমাপ্ত অবস্থায় টকশো বন্ধ হয়ে যায় । ফলে আমি পূর্ণাঙ্গ রুপে আমার বক্তব্য উপস্থাপন করতে পারিনি ।

আমি মূলত বলতে যাচ্ছিলাম ‘হরে কৃষ্ণ হরে রাম’

শ্লোগান যেটা দেয়া হয়েছে এটা সনাতন ধর্মের অনুসারীদের জন্য অফেন্সিভ কিছু নয় । কারন গত ক’দিন থেকেই শেখ হাসিনার লন্ডন সফর করা কালে যুক্তরাজ্য বি এনপি’র প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশের একটি শ্লোগানকে কেন্দ্র করে তারা বলতে চেয়েছেন এটা সনাতন ধর্মাবলম্বনকারীদের প্রতি অবমাননা ও অফেন্সিভ ।এর ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে আমি বলেছি এটা মোটেই অফেন্সিভ নয় । বরং তারা যখন বলেন ,’হরে রাম হরে কৃষ্ণ ‘ তখন তারা মূলত বলেন ,’ধন্য রাম ধন্য কৃষ্ণ ‘ একথাটা কেউ উচ্চারন করলে এটা তাদের প্রতি অবমাননা করা বুঝায়না ।বরং এটা তাদের জন্য প্রাউড এরই বিষয় ।

উদাহরণ স্বরুপ আমি বলেছি ,যেমন আমরা যখন বলি আল্লাহ! আল্লাহ! ( তখন আমরা আল্লাহর প্রতি আমাদের সর্বোচ্চ সম্মান এবং ভালবাসাই প্রকাশ করি )।

তখন টকশো’র সন্চালক আমার অসমাপ্ত কথাকে ইন্টারাপ্ট করে বলেন :

‘ তা হলে কি আপনি প্রাউড হয়ে বলছেন কথাটা ?’

এ প্রশ্নে তিনি কথার মোড় ঘুরিয়ে পূর্বের

‘হরে কৃষ্ণ হরে রামে’র দিকে নিয়ে যেতে চান ।

কিন্তু আমি কথাকে সে দিকে নিয়ে যেতে দিতে চাইনি ।

প্রতিপক্ষের একজন আমাদেরকে উদ্দেশ্য করে ‘কাফির’ বলায় তাদের এই হাস্যকর কথাকে তাদের প্রতি ফিরিয়ে দিয়ে আমি আমার কথাকে অব্যাহত রাখি এবং বলি :

‘অফকোর্স প্রাউড । দিস ইজ প্রাউড ।’

অর্থাৎ আল্লাহ আল্লাহ বলা প্রাউডের বিষয় ।

কারন কেউ যদি বলে আল্লাহ !আল্লাহ ! তাহলে একটা মুসলমান প্রাউড হওয়া উচিত ।’

তার পর আমি এ প্রসংগে আমার বিশ্বাসের

পূণরুচ্চারন করে বলি :

” বিকজ শেষ নবী হুজুর পাক স:।

এর আগে এক লক্ষ চব্বিশ হাজার পয়গাম্বর ছিলেন ।

আদম আ: থেকে শেষ নবী আল্লাহর রাসূল স: কে মানি ।”

এ পর্যন্তই আমার মূল কথা ।

কিন্তু উপস্থাপকের ইন্টারাপসনে আমার কথাকে ঘুরিয়ে ফেলার চেষ্ঠার একটা রেশ আমার মধ্যে থেকে যায় । ফলে আমার পরবর্তী বাক্যে

কথায় একটু উপস্থাপন বিপত্তি ঘটে এবং ‘রাম কৃষ্ণ’ প্রসংগ

মাঝখানে ঢুকে পড়ে । এটা উপস্থিত অবস্থায় আমার স্লিপ অফ টাং এর কারনে ঘটেছে ।

আমার ঈমান এবং আমার স্বীকৃতি ঐটাই যা আমি উপরে ব্যক্ত করেছি । রাম এবং কৃষ্ণকে নবীদের সাথে তুলনা করার

কোন উদ্দেশ্য ছিলনা বা এর প্রশ্নই উঠে না ।

আমি সবাইকে বক্তব্যের শেষ অংশ খেয়াল করে শুনতে বিণীত অনুরোধ করবো ।

শেষদিকে প্রতিপক্ষের খসরুজ্জামান সাহেব ইন্টারাপ্ট করে বলেন : ‘ আপনি কি নবী রাসুলের সাথে রাম কৃষ্ণের…..

(তুলনা করতে চেয়েছেন ?) তার কথা শেষ হয়নি।

আমার শেষ বাক্যটা খেয়াল করলে স্পষ্ঠ শুনতে পাবেন :

আমি খসরুজ্জামা সাহেবের কথায় ইন্টারাপ্ট করে বলেছি:

‘না না ভাই……. ।’

আমি খসরুজ্জামান সাহেবের প্রশ্নের বিষয়টাও পরিষ্কার করতে চেয়েছিলাম । কিন্তু কথা কেটে যাওয়ায় তা কিছুটা

অ সমাপ্ত থেকে যায় ।

আমি খসরুজ্জামান সাহেবকে আমার কাছে ক্লিয়ারিফিকেসন দাবী করায় ধন্যবাদ জানাই ।

কারন এর ফলে আমি ‘না না ভাই ‘বলে আমার মূল কথাটা তুলে ধরতে পেরেছি।

এ প্রসংগে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে , মন্তব্য করে এবং আমাকে ব্যক্তিগত ম্যাসেজ ও ফোন করে অনেকে দৃষ্ঠি আকর্ষন করেছেন । এ জন্য আমি সকলের কাছে কৃতজ্ঞ ।

আমি মনে করি , এ রকম সচেতন জিন্দাদিল প্রতিবাদী ঈমানদার যে সমাজে আছে আমি সে সমাজের একজন নগন্য নাগরিক হতে পেরে নিজে গৌরব বোধ করি ও আমার ঈমানকে অনেক নিরাপদ মনে করি ।

তবু আমি বলি মানুষ ভূলের উর্ধে নয় । আমারও এক প্রসংগের সাথে আরেক প্রসংগের ঢুকে পড়াকে নিয়ন্ত্রন করা উচিত ছিল । আমি দুনিয়ার সব কিছুর উর্ধে আমার ঈমানকে স্থান দেই । এবং জ্ঞানবান ও সম্মানিত

উলামায়ে কেরামের নিকট থেকে শিখতে চেষ্ঠা করি ।

আমি আমার বক্তব্যের শেষাংসের

‘ রাম বলেন কৃষ্ণ বলেন ‘ বাক্য দ্বয়কে প্রত্যাহার করছি।

এবং এর জন্য আমি মহান আল্লাহর নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করছি ।

ফেসবুক এবং অন্নান্য মিডিয়ায় আমার যে ভিডিও বক্তব্য

প্রচারিত হয়েছে আমার উপরোক্ত ব্যাখ্যার পর ভিডিওটি একটু কষ্ঠ করে আবার দেখে মিলিয়ে নিতে সবার প্রতি বিণীত অনুরোধ করছি ।