ঢাকা ১১:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
প্যারিসে Point d’Aide – এইড পয়েন্ট এর নতুন অফিসের উদ্বোধন তরুণ সাহিত্যিক সাদাত হোসাইনকে প্যারিসে সংবর্ধনা দিলো ফ্রান্সপ্রবাসী বাংলাদেশীরা গাজীপুর জেলা সমিতি,ফ্রান্স’র দ্বি বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত : ফারুক খান সভাপতি, জুয়েল সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত কেবল উপবাসের নামই সিয়াম নয়, প্রকৃত মানুষ হওয়ার শিক্ষাই সিয়াম ফ্রান্সে একটি সর্বজন গ্রহণযোগ্য ‘বাংলাদেশ সমিতি’র তাগিদ, একটি প্রস্তাবনা শিশু কিশোরদের নানা ইভেন্ট নিয়ে ইপিএস কমিউনিটি ফ্রান্সের স্বাধীনতা দিবস পালন জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন ফ্রান্স’র নতুন কমিটির পরিচিতি ও ইফতার প্যারিসে ‘নকশী বাংলা ফাউন্ডেশন সম্মাননা’ পেলেন ফ্রান্স দর্পণ নির্বাহী সম্পাদক ফেরদৌস করিম আখঞ্জী নানা আয়োজনে প্যারিসে সাফের আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালন ‘পাঠশালা’ – ফরাসী ভাষা শিক্ষার স্কুল উদ্বোধন

এম সি ইন্সটিটিউট ফ্রান্সের ইসলামিক কুইজ প্রতিযোগীতা ও পুরুষ্কার বিতরণী অনুষ্টিত

  • আপডেট সময় ১১:৪৮:২৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৬ মে ২০১৮
  • ২৯৩ বার পড়া হয়েছে

ফ্রান্সে বসবাসরত বিভিন্ন জাতি গোষ্টীর শিশুকিশোরদের মাঝে ধর্মীয় জ্ঞান চর্চা ও তা লালনের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশী পরিচালিত একমাত্র প্রতিষ্টান “মাল্টি কালচারাল ইন্সটিটিউট” এমসিইর বার্ষিক কুইজ প্রতিযোগীতা ও পুরুষ্কার বিতরণী অনুষ্টিত হল ৬ মে রোববার। দিনব্যাপী এ প্রতিযোগীতায় বাংলাদেশ ছাড়াও আলজেরিয়া, মরোক্ক, তিউনিসিয়া, পাকিস্থান প্রভৃতি বিভিন্ন দেশের ফ্রান্সে বসবাসরত প্রায় অর্ধশত শিশুকিশোর অংশ গ্রহণ করে। প্রতিযোগীতার শুরুতেই এধরনের প্রতিযোগীতার উদ্দেশ্য বর্ননা করে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রতিষ্টানটির পরিচালক অধ্যাপক এম বদরুল বিন হারুন।

কুইজ পরিচালনা শায়েখ মুজতবা আহমেদ,  বিচারকের  দায়িত্ব পালন করেন লওন জামে মসজিদের প্রেসিডেন্ট শায়েখ মুসা। কোরআনের বর্নিত বিভিন্ন নবী-রাসূলের জীবনীর উপর বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন দিয়ে কুইজ প্রতিযোগিতা সাজানো হয়। প্রতিযোগীতায় হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর প্রথম হয় বাংলাদেশী বংশদ্ভুত কিশোর জাহিন ইসলাম ।দ্বিতীয় স্থান অধিকার করছে আরব বংশদ্ভুত মোহাম্মেদ পাঠেল। তৃতীয় স্থান অধিকার করে আলজেরিয়ান বংশদ্ভুত উম্মে ময়মুন।

অনুষ্টানে অথিতি হিসাবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পূরুষ্কার বিতরণ করেন, কমিউনিটি নেতা আব্দুল মালেক ফরাজি, হাজী হাবিব, সাংবাদিক অধ্যাপক শামসুল ইসলাম, সাংবাদিক লুতফুর রহমান বাবু, সমাজসেবী নাসির উদ্দিন, বদরুদ্দোজা প্রমূখ।

সমস্থ অনুষ্টান জুড়ে বাচ্চাদের সঙ্গে  মহিলাদের ব্যাপক উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। প্রতিযোগীতায় অংশ নিতে শিশু-কিশোরদের মাঝে ব্যাপক  আনন্দ ও উত্সাহ  ছিল লক্ষনীয়। এছাড়া টেবিল জুড়ে বিভিন্ন দেশে ঐতিহ্যবাহী  রকমারী খাবারে  সাজানো ছিল। আগত অথিতি, সমেবেত অভিবাক ও শিশুকিশোররা বিভিন্ন দেশের ঐতিহ্যবাহী খাবারের সাথে নিজেদের ঐতিহ্য বিনিময় করেন।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

লক ডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

যুক্তরাজ্যে করোনার মধ্যেই শিশুদের মাঝে নতুন রোগের হানা

প্যারিসে Point d’Aide – এইড পয়েন্ট এর নতুন অফিসের উদ্বোধন

এম সি ইন্সটিটিউট ফ্রান্সের ইসলামিক কুইজ প্রতিযোগীতা ও পুরুষ্কার বিতরণী অনুষ্টিত

আপডেট সময় ১১:৪৮:২৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৬ মে ২০১৮

ফ্রান্সে বসবাসরত বিভিন্ন জাতি গোষ্টীর শিশুকিশোরদের মাঝে ধর্মীয় জ্ঞান চর্চা ও তা লালনের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশী পরিচালিত একমাত্র প্রতিষ্টান “মাল্টি কালচারাল ইন্সটিটিউট” এমসিইর বার্ষিক কুইজ প্রতিযোগীতা ও পুরুষ্কার বিতরণী অনুষ্টিত হল ৬ মে রোববার। দিনব্যাপী এ প্রতিযোগীতায় বাংলাদেশ ছাড়াও আলজেরিয়া, মরোক্ক, তিউনিসিয়া, পাকিস্থান প্রভৃতি বিভিন্ন দেশের ফ্রান্সে বসবাসরত প্রায় অর্ধশত শিশুকিশোর অংশ গ্রহণ করে। প্রতিযোগীতার শুরুতেই এধরনের প্রতিযোগীতার উদ্দেশ্য বর্ননা করে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রতিষ্টানটির পরিচালক অধ্যাপক এম বদরুল বিন হারুন।

কুইজ পরিচালনা শায়েখ মুজতবা আহমেদ,  বিচারকের  দায়িত্ব পালন করেন লওন জামে মসজিদের প্রেসিডেন্ট শায়েখ মুসা। কোরআনের বর্নিত বিভিন্ন নবী-রাসূলের জীবনীর উপর বিভিন্ন ধরনের প্রশ্ন দিয়ে কুইজ প্রতিযোগিতা সাজানো হয়। প্রতিযোগীতায় হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর প্রথম হয় বাংলাদেশী বংশদ্ভুত কিশোর জাহিন ইসলাম ।দ্বিতীয় স্থান অধিকার করছে আরব বংশদ্ভুত মোহাম্মেদ পাঠেল। তৃতীয় স্থান অধিকার করে আলজেরিয়ান বংশদ্ভুত উম্মে ময়মুন।

অনুষ্টানে অথিতি হিসাবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পূরুষ্কার বিতরণ করেন, কমিউনিটি নেতা আব্দুল মালেক ফরাজি, হাজী হাবিব, সাংবাদিক অধ্যাপক শামসুল ইসলাম, সাংবাদিক লুতফুর রহমান বাবু, সমাজসেবী নাসির উদ্দিন, বদরুদ্দোজা প্রমূখ।

সমস্থ অনুষ্টান জুড়ে বাচ্চাদের সঙ্গে  মহিলাদের ব্যাপক উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। প্রতিযোগীতায় অংশ নিতে শিশু-কিশোরদের মাঝে ব্যাপক  আনন্দ ও উত্সাহ  ছিল লক্ষনীয়। এছাড়া টেবিল জুড়ে বিভিন্ন দেশে ঐতিহ্যবাহী  রকমারী খাবারে  সাজানো ছিল। আগত অথিতি, সমেবেত অভিবাক ও শিশুকিশোররা বিভিন্ন দেশের ঐতিহ্যবাহী খাবারের সাথে নিজেদের ঐতিহ্য বিনিময় করেন।