ঢাকা ১২:৫৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
প্রবাসে বাংলার সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ধরে রাখার লক্ষ্যে রোমে বৃহত্তম ঢাকাবাসীর পিঠা উৎসব নতুন তত্ত্ব ও জ্ঞান সৃষ্টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল উদ্দেশ্যঃ ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক ফ্রান্স দর্পণ পত্রিকার সম্পাদকের ভাইয়ের মৃত্যুতে প্যারিসে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ইপিএস কমিউনিটি ইন ফ্রান্স এর উদ্যোগে মহান বিজয় দিবস পালিত গ্লোবাল জালালাবাদ এসোসিয়েশন ফ্রান্সের নবগঠিত কমিটির আত্মপ্রকাশ ফরাসি নাট্যমঞ্চে বাংলাদেশি শোয়েব বালাগঞ্জে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত রুপালী ব্যাংক লিমিটেড সুলতানপুর শাখার উদ্যোগে প্রকাশ্যে কৃষি ও পল্লী ঋণ বিতরণ অনুষ্ঠিত সাজাপ্রাপ্ত এক আসামীকে গ্রেফতার করেছে বালাগঞ্জ থানায় পুলিশ গহরপুরে কৃতি ফুটবলার লায়েক আহমদ সংবর্ধিত; জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে লেখাপড়ার গুরুত্ব অনুভব করেছি

করোনা: বিশ্বে সর্বোচ্চ মৃত্যুহার এখন বৃটেনে

  • আপডেট সময় ১০:৫৫:৫৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১
  • ৪৭ বার পড়া হয়েছে

Warning: Attempt to read property "post_excerpt" on null in /home/u305720254/domains/francedorpan.com/public_html/wp-content/themes/newspaper-pro/template-parts/common/single_two.php on line 117

হতাশাজনক এক ডাটা। তাতে বলা হয়েছে, বিশ্বে করোনা ভাইরাসে সর্বোচ্চ মৃত্যুহার এখন বৃটেনে। ১৭ই জানুয়ারি সমাপ্ত সপ্তাহে সেখানে প্রতিদিন গড়ে ৯৩৫ জন মানুষ মারা গেছেন। এই সংখ্যা প্রতি ১০ লাখে ১৬.৫ এর সমপরিমাণ। অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটিভিত্তিক গবেষণা টিম ‘আওয়ার ওয়ার্ল্ড ইন ডাটা’য় সংকলিত তথ্যে দেখা যাচ্ছে, বিশ্বে আর কোনো দেশেই বৃটেনের মতো মাথাপিছু মৃত্যুহার এত বেশি নেই। এর মধ্য দিয়ে চেক প্রজাতন্ত্রকে অতিক্রম করেছে বৃটেন। ১১ই জানুয়ারি থেকে চেক প্রজাতন্ত্রে মৃত্যুহার ছিল সর্বোচ্চ। রোববার রাতে তাদের সর্বশেষ মৃতের তথ্যসম্বলিত তথ্য প্রকাশ হয়।

তাতে দেখা যায়, চেক প্রজাতন্ত্রে প্রতি ১০ লাখ মানুষে এই মৃত্যুহার ১৬.৩। রোববারও সেখানে মারা গেছেন ৬৭১ জন মানুষ। পর্তুগালে এই হার ১৪.৮২। স্লোভাকিয়ায় ১৪.৫৫ এবং লিথুয়ানিয়ায় এই হার ১৩.০১। সপ্তাহান্তে এবং সোমবার বৃটেনে মৃতের সংখ্যা কিছুটা কম দেখা গেছে। এর কারণ, সেখানে এ সময়ে রিপোর্টিংয়ে পিছিয়ে থাকার জন্য এমনটা হয়েছে। এতে ইঙ্গিত মেলে যে, এ সপ্তাহ শুরুর পর থেকে বৃটেনে মৃতের হার আবার বৃদ্ধি পেতে পারে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডেইলি মেইল।  
এতে আরো বলা হয়, বৃটেনে তৃতীয় দফায় দেশজুড়ে লকডাউন দেয়া হয়েছে। এ জন্য সেখানে আক্রান্ত বা মৃতের সংখ্যা আস্তে আস্তে কমে আসতে পারে। সাত দিনে সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা কমেছে এক পঞ্চমাংশ। আগামী কয়েক সপ্তাহে মৃতের সংখ্যা কমে আসবে বলে মনে করা হচ্ছে। গত অক্টোবর থেকে করোনা মহামারির এপিসেন্টার বা কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে ইউরোপ। এ অঞ্চলের ৫২টি দেশ এবং টেরিটোরিসে প্রতিদিন গড়ে ৫৫৭০ মানুষ মারা যাওয়ার রেকর্ড করা হয়েছে। এক সপ্তাহ আগের তুলনায় এই সংখ্যা শতকরা ১৭ ভাগ বেশি। যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় গত সপ্তাহে মৃত্যুহার শতকরা ২০ ভাগ বৃদ্ধি পেয়েছে। এ সময়ে প্রতিদিন গড়ে মারা গেছেন ৮৬৯ জন মানুষ। লাতিন আমেরিকা এবং ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে গত এক সপ্তাহে মারা গেছেন ৫,৪২,৪১০ মানুষ। ফলে মৃত্যু বৃদ্ধি পেয়েছে শতকরা ২৫ ভাগ পর্যন্ত। সেখানে গড়ে প্রতিদিন মারা যাচ্ছেন ২৭৫১ জন মানুষ।
বৃটেনের স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে, সেখানে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৯,২৪৩। যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল, ভারত ও মেক্সিকোর সম্মিলিত তালিকায় বৃটেন এখন পঞ্চম সর্ববৃহৎ মৃতের দেশ। কিন্তু অন্য দেশগুলোতে জনসংখ্যার আকার অনেক বিশাল। এর ফলে সেখানে মাথাপিছু মৃত্যুহার অনেকটা কম। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, এ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ১৩তম। সেখানে প্রতি ১০ লাখ মানুষে মৃতের হার ৪.৭২। মেক্সিকো অবস্থান করছে ২০তম অবস্থানে। সেখানে প্রতি ১০ লাখে মৃত্যুহার ৭.৭৫।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

লক ডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

যুক্তরাজ্যে করোনার মধ্যেই শিশুদের মাঝে নতুন রোগের হানা

প্রবাসে বাংলার সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ধরে রাখার লক্ষ্যে রোমে বৃহত্তম ঢাকাবাসীর পিঠা উৎসব

করোনা: বিশ্বে সর্বোচ্চ মৃত্যুহার এখন বৃটেনে

আপডেট সময় ১০:৫৫:৫৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১

হতাশাজনক এক ডাটা। তাতে বলা হয়েছে, বিশ্বে করোনা ভাইরাসে সর্বোচ্চ মৃত্যুহার এখন বৃটেনে। ১৭ই জানুয়ারি সমাপ্ত সপ্তাহে সেখানে প্রতিদিন গড়ে ৯৩৫ জন মানুষ মারা গেছেন। এই সংখ্যা প্রতি ১০ লাখে ১৬.৫ এর সমপরিমাণ। অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটিভিত্তিক গবেষণা টিম ‘আওয়ার ওয়ার্ল্ড ইন ডাটা’য় সংকলিত তথ্যে দেখা যাচ্ছে, বিশ্বে আর কোনো দেশেই বৃটেনের মতো মাথাপিছু মৃত্যুহার এত বেশি নেই। এর মধ্য দিয়ে চেক প্রজাতন্ত্রকে অতিক্রম করেছে বৃটেন। ১১ই জানুয়ারি থেকে চেক প্রজাতন্ত্রে মৃত্যুহার ছিল সর্বোচ্চ। রোববার রাতে তাদের সর্বশেষ মৃতের তথ্যসম্বলিত তথ্য প্রকাশ হয়।

তাতে দেখা যায়, চেক প্রজাতন্ত্রে প্রতি ১০ লাখ মানুষে এই মৃত্যুহার ১৬.৩। রোববারও সেখানে মারা গেছেন ৬৭১ জন মানুষ। পর্তুগালে এই হার ১৪.৮২। স্লোভাকিয়ায় ১৪.৫৫ এবং লিথুয়ানিয়ায় এই হার ১৩.০১। সপ্তাহান্তে এবং সোমবার বৃটেনে মৃতের সংখ্যা কিছুটা কম দেখা গেছে। এর কারণ, সেখানে এ সময়ে রিপোর্টিংয়ে পিছিয়ে থাকার জন্য এমনটা হয়েছে। এতে ইঙ্গিত মেলে যে, এ সপ্তাহ শুরুর পর থেকে বৃটেনে মৃতের হার আবার বৃদ্ধি পেতে পারে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডেইলি মেইল।  
এতে আরো বলা হয়, বৃটেনে তৃতীয় দফায় দেশজুড়ে লকডাউন দেয়া হয়েছে। এ জন্য সেখানে আক্রান্ত বা মৃতের সংখ্যা আস্তে আস্তে কমে আসতে পারে। সাত দিনে সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা কমেছে এক পঞ্চমাংশ। আগামী কয়েক সপ্তাহে মৃতের সংখ্যা কমে আসবে বলে মনে করা হচ্ছে। গত অক্টোবর থেকে করোনা মহামারির এপিসেন্টার বা কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে ইউরোপ। এ অঞ্চলের ৫২টি দেশ এবং টেরিটোরিসে প্রতিদিন গড়ে ৫৫৭০ মানুষ মারা যাওয়ার রেকর্ড করা হয়েছে। এক সপ্তাহ আগের তুলনায় এই সংখ্যা শতকরা ১৭ ভাগ বেশি। যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় গত সপ্তাহে মৃত্যুহার শতকরা ২০ ভাগ বৃদ্ধি পেয়েছে। এ সময়ে প্রতিদিন গড়ে মারা গেছেন ৮৬৯ জন মানুষ। লাতিন আমেরিকা এবং ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে গত এক সপ্তাহে মারা গেছেন ৫,৪২,৪১০ মানুষ। ফলে মৃত্যু বৃদ্ধি পেয়েছে শতকরা ২৫ ভাগ পর্যন্ত। সেখানে গড়ে প্রতিদিন মারা যাচ্ছেন ২৭৫১ জন মানুষ।
বৃটেনের স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে, সেখানে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৯,২৪৩। যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল, ভারত ও মেক্সিকোর সম্মিলিত তালিকায় বৃটেন এখন পঞ্চম সর্ববৃহৎ মৃতের দেশ। কিন্তু অন্য দেশগুলোতে জনসংখ্যার আকার অনেক বিশাল। এর ফলে সেখানে মাথাপিছু মৃত্যুহার অনেকটা কম। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, এ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ১৩তম। সেখানে প্রতি ১০ লাখ মানুষে মৃতের হার ৪.৭২। মেক্সিকো অবস্থান করছে ২০তম অবস্থানে। সেখানে প্রতি ১০ লাখে মৃত্যুহার ৭.৭৫।