ঢাকা ১০:৫২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
প্যারিসে Point d’Aide – এইড পয়েন্ট এর নতুন অফিসের উদ্বোধন তরুণ সাহিত্যিক সাদাত হোসাইনকে প্যারিসে সংবর্ধনা দিলো ফ্রান্সপ্রবাসী বাংলাদেশীরা গাজীপুর জেলা সমিতি,ফ্রান্স’র দ্বি বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত : ফারুক খান সভাপতি, জুয়েল সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত কেবল উপবাসের নামই সিয়াম নয়, প্রকৃত মানুষ হওয়ার শিক্ষাই সিয়াম ফ্রান্সে একটি সর্বজন গ্রহণযোগ্য ‘বাংলাদেশ সমিতি’র তাগিদ, একটি প্রস্তাবনা শিশু কিশোরদের নানা ইভেন্ট নিয়ে ইপিএস কমিউনিটি ফ্রান্সের স্বাধীনতা দিবস পালন জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন ফ্রান্স’র নতুন কমিটির পরিচিতি ও ইফতার প্যারিসে ‘নকশী বাংলা ফাউন্ডেশন সম্মাননা’ পেলেন ফ্রান্স দর্পণ নির্বাহী সম্পাদক ফেরদৌস করিম আখঞ্জী নানা আয়োজনে প্যারিসে সাফের আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালন ‘পাঠশালা’ – ফরাসী ভাষা শিক্ষার স্কুল উদ্বোধন

জঙ্গি মোকাবিলায় আফ্রিকার সাহেলে সেনা পাঠাচ্ছে ফ্রান্স

  • আপডেট সময় ০৯:২৮:০৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০
  • ৯১ বার পড়া হয়েছে

Warning: Attempt to read property "post_excerpt" on null in /home/u305720254/domains/francedorpan.com/public_html/wp-content/themes/newspaper-pro/template-parts/common/single_two.php on line 117

সাহারা মরুভূমির দক্ষিণে আফ্রিকার সাহেল অঞ্চলে ইসলামপন্থী জঙ্গিদের মোকাবিলায় ছয় শতাধিক সেনা পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে ফ্রান্স। রবিবার এক বিবৃতিতে যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চলটিতে নতুন করে আরও সেনা মোতায়েনের এ সিদ্ধান্তের কথা জানান ফরাসি প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফ্লোরেন্স পার্লি।

আফ্রিকার সাহেল অঞ্চল বহুদিন ধরেই অস্থিতিশীল। ২০১২ সালে সেখানকার বহু এলাকা দখল করে নেয় আল-কায়েদাপন্থী জঙ্গিরা। এতে করে ওই এলাকার বিদ্রোহী গোষ্ঠী তুয়ারেগ কোণঠাসা হয়ে পড়ে। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে ফ্রান্সের নেতৃত্বাধীন পাঁচ জাতির বাহিনী (জি-ফাইভ সাহেল নামে পরিচিত) অভিযান চালিয়ে জঙ্গিদের উৎখাত করলেও পরে আবারও সংঘটিত হয় জঙ্গিরা।

রবিবার প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফ্লোরেন্স পার্লি বলেছেন, ‘সেনাসদস্যদের অধিকাংশই মালি, বুরকিনা ফাসো ও নাইজারে পাঠানো হবে। আর অন্যরা জি-ফাইভ সাহেল বাহিনীর সঙ্গে যুক্ত হবে।’

সাহেল অঞ্চলে সেনা ক্যাম্পগুলো লক্ষ্য করে প্রায়ই জঙ্গিরা হামলা চালায়। ওই মরু অঞ্চল বিদেশিদের কাছে খুবই জনপ্রিয়। এসব অঞ্চল থেকে মাঝেমধ্যেই পর্যটকদের অপহরণ করে উগ্রপন্থীরা। অঞ্চলটির উগ্রপন্থীদের সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন আইএসের যোগসূত্র রয়েছে।

গত তিন মাসে সাহেল অঞ্চলের দেশ নাইজার, বুরকিনা ফাসো ও মালিতে জঙ্গি হামলায় অন্তত ৩০০ মানুষ নিহত হয়েছে। ফ্রান্স ও যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে প্রশিক্ষণ পেলেও বুরকিনা ফাসোর সেনাবাহিনী জঙ্গি সহিংসতা দমনে এখন পর্যন্ত ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে সন্ত্রাসীদের দমনে অভিযান চালিয়ে ব্যর্থ হয়েছে আঞ্চলিক ও ফরাসি সেনারা।

জাতিসংঘের মতে, ধারাবাহিক হামলার কারণে শুধু বুরকিনা ফাসোর ওই উত্তর ও পূর্বাঞ্চল থেকে ইতোমধ্যে ৫ লাখ মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে।

উল্লেখ্য, সাহেল অঞ্চলে ইসলামপন্থী বিদ্রোহীদের দমনে বর্তমানে সাড়ে চার হাজারেরও বেশি ফরাসি সেনা মোতায়েন রয়েছে।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

লক ডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

যুক্তরাজ্যে করোনার মধ্যেই শিশুদের মাঝে নতুন রোগের হানা

প্যারিসে Point d’Aide – এইড পয়েন্ট এর নতুন অফিসের উদ্বোধন

জঙ্গি মোকাবিলায় আফ্রিকার সাহেলে সেনা পাঠাচ্ছে ফ্রান্স

আপডেট সময় ০৯:২৮:০৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০

সাহারা মরুভূমির দক্ষিণে আফ্রিকার সাহেল অঞ্চলে ইসলামপন্থী জঙ্গিদের মোকাবিলায় ছয় শতাধিক সেনা পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে ফ্রান্স। রবিবার এক বিবৃতিতে যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চলটিতে নতুন করে আরও সেনা মোতায়েনের এ সিদ্ধান্তের কথা জানান ফরাসি প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফ্লোরেন্স পার্লি।

আফ্রিকার সাহেল অঞ্চল বহুদিন ধরেই অস্থিতিশীল। ২০১২ সালে সেখানকার বহু এলাকা দখল করে নেয় আল-কায়েদাপন্থী জঙ্গিরা। এতে করে ওই এলাকার বিদ্রোহী গোষ্ঠী তুয়ারেগ কোণঠাসা হয়ে পড়ে। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে ফ্রান্সের নেতৃত্বাধীন পাঁচ জাতির বাহিনী (জি-ফাইভ সাহেল নামে পরিচিত) অভিযান চালিয়ে জঙ্গিদের উৎখাত করলেও পরে আবারও সংঘটিত হয় জঙ্গিরা।

রবিবার প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফ্লোরেন্স পার্লি বলেছেন, ‘সেনাসদস্যদের অধিকাংশই মালি, বুরকিনা ফাসো ও নাইজারে পাঠানো হবে। আর অন্যরা জি-ফাইভ সাহেল বাহিনীর সঙ্গে যুক্ত হবে।’

সাহেল অঞ্চলে সেনা ক্যাম্পগুলো লক্ষ্য করে প্রায়ই জঙ্গিরা হামলা চালায়। ওই মরু অঞ্চল বিদেশিদের কাছে খুবই জনপ্রিয়। এসব অঞ্চল থেকে মাঝেমধ্যেই পর্যটকদের অপহরণ করে উগ্রপন্থীরা। অঞ্চলটির উগ্রপন্থীদের সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন আইএসের যোগসূত্র রয়েছে।

গত তিন মাসে সাহেল অঞ্চলের দেশ নাইজার, বুরকিনা ফাসো ও মালিতে জঙ্গি হামলায় অন্তত ৩০০ মানুষ নিহত হয়েছে। ফ্রান্স ও যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে প্রশিক্ষণ পেলেও বুরকিনা ফাসোর সেনাবাহিনী জঙ্গি সহিংসতা দমনে এখন পর্যন্ত ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে সন্ত্রাসীদের দমনে অভিযান চালিয়ে ব্যর্থ হয়েছে আঞ্চলিক ও ফরাসি সেনারা।

জাতিসংঘের মতে, ধারাবাহিক হামলার কারণে শুধু বুরকিনা ফাসোর ওই উত্তর ও পূর্বাঞ্চল থেকে ইতোমধ্যে ৫ লাখ মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে।

উল্লেখ্য, সাহেল অঞ্চলে ইসলামপন্থী বিদ্রোহীদের দমনে বর্তমানে সাড়ে চার হাজারেরও বেশি ফরাসি সেনা মোতায়েন রয়েছে।