ঢাকা ১০:১৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
কেবল উপবাসের নামই সিয়াম নয়, প্রকৃত মানুষ হওয়ার শিক্ষাই সিয়াম ফ্রান্সে একটি সর্বজন গ্রহণযোগ্য ‘বাংলাদেশ সমিতি’র তাগিদ, একটি প্রস্তাবনা শিশু কিশোরদের নানা ইভেন্ট নিয়ে ইপিএস কমিউনিটি ফ্রান্সের স্বাধীনতা দিবস পালন জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন ফ্রান্স’র নতুন কমিটির পরিচিতি ও ইফতার প্যারিসে ‘নকশী বাংলা ফাউন্ডেশন সম্মাননা’ পেলেন ফ্রান্স দর্পণ নির্বাহী সম্পাদক ফেরদৌস করিম আখঞ্জী নানা আয়োজনে প্যারিসে সাফের আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালন ‘পাঠশালা’ – ফরাসী ভাষা শিক্ষার স্কুল উদ্বোধন ইতালির আরেচ্ছোতে বর্ণাঢ্য একুশে মেলা: মুসলিম কমিউনিটির কবরস্থান বাস্তবায়নের দাবী ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়াবে বাংলাদেশ দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশন: ফিলিস্তিন ও বাংলাদেশ দূতাবাসে বিশেষ বৈঠক মামুন হাওলাদার প্রবাসে বাংলার সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ধরে রাখার লক্ষ্যে রোমে বৃহত্তম ঢাকাবাসীর পিঠা উৎসব

ফরাসি নাট্যমঞ্চে বাংলাদেশি শোয়েব

  • আপডেট সময় ১০:১৮:৫৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০২৩
  • ২৪০ বার পড়া হয়েছে

নজমুল কবির:

Pascal Batigne, Juan Antonio Crespillo, Sylvia Etcheto, Olivier Horeau, Anne-Sophie Mage, Isabel Oed, Laurent Prache – এই নামগুলোর সাথে আরো একটি নাম Mohammad Muzammal Hossain Soheb!! এ নামটি চোখে পড়লে আপনার বিশ্বাস হবার কথা নয় যে ইনি একজন ফ্রান্সপ্রবাসী বাংলাদেশী! এবং এটিও বিশ্বাস করা অনেকটা কঠিন যে উক্ত অভিনেতাদের সাথে একই মঞ্চে অভিনয় করে যাচ্ছে একজন শোয়েব, একজন বাংলাদেশী! ফরাসী মূলধারার নাট্যচর্চায় একজন সক্রিয় অভিনেতা, বাংলাদেশের শোয়েব মোজাম্মেল।।

শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি আর রোমান্টিকতার দেশ ফ্রান্স। অতীতে বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে শিল্প-সাহিত্য চর্চার জন্য ফ্রান্সে এসেছে। এখন অবশ্য এদেশে আগমনের কারণ ভিন্ন। কেউ রাজনৈতিক কারনে, কেউ অর্থনৈতিক কারণে এদেশে আসে। তবে দ্বিতীয় কারনটিই এখন বড় ভূমিকা রাখছে, বিশেষতঃ অভিবাসীদের এই জনস্রোতে তা স্পষ্টতঃই প্রতীয়মান। আমাদের প্রায় সকলেই এই দ্বিতীয় কারণেই এদেশে আসা।
তবে এদেশে যে যে কারনেই এসে থাকি তার ব্যতিক্রম কারনও থাকে বই কী!

অর্থনৈতিক কারণটাকে প্রতিনিয়ত কুর্নিশ করেও কেউ কেউ শিল্প-সাহিত্য চর্চায়ও নিজেকে নিমগ্ন রাখে। মগজে এবং মননে কিছু নেশা খুব করে জেঁকে বসে। সেটিকে উপেক্ষা করবার উপায় থাকে না। বাংলাদেশের সন্তান শোয়েব এমন-ই একজন যে তার মেধা-শ্রম আর নিয়মিত চর্চা দিয়ে ফরাসী মূলধারার নাট্যগ্রুপে নিজের অবস্থান প্রতিষ্ঠা করেছে। ফরাসী মূলধারার মঞ্চ নাটকে তিনি একজন নিয়মিত পারফর্মার।

২০১৬ সাল থেকে তিনি নাট্যজগতে নেশার টান অনুভব করেন। যদিও ভাষাগত দুর্বলতা তাকে কিছুটা দমিয়ে রাখে। কিন্তু অদম্য আগ্রহ এবং নিয়মিত চর্চা তাকে ফরাসী অভিনেতাদের সাথে তাল মিলিয়ে অভিনয় করতে সাফল্য এনে দেয়।

শোয়েব মোজাম্মেল ছোট বেলা থেকেই অভিনয়ের প্রতি ঝোঁক ছিলো। দেশে থাকাকালীন শিশুশিল্পী হিসেবে অভিনয়ে হাতেখড়ি। এদেশে এসে তার সেই চর্চায় নতুন বাতাসের দোলা লেগেছে। নাট্যদলের সাথে থেকে অভিনয়কে আরো বোঝার চেষ্টা করেছে। তীব্র টান অনুভব করেছে। কিন্তু ভাষাগত দুর্বলতা তাকে দমিয়ে রাখলেও ইচ্ছেশক্তি ছিলো প্রবল। তাই তাকে প্রথমতঃ একটি নাটকে অভিনয় করতে হয় যেটিতে কেবল এক্সপ্রেশন ছিলো, সংলাপ ছিলো না! সেই থেকেই তার মঞ্চে উপস্থিতি।

ধীরে ধীরে ফরাসী ভাষাকেও রপ্ত করার চেষ্টা চলতে থাকে। পাশাপাশি অভিনয়। এমনি করে ধীরে ধীরে তার মঞ্চে ওঠা। এখন পরিচালক নিয়মিতই ডাকেন শোয়েবকে, মঞ্চ নাটকের নতুন নতুন প্রজেক্টে। ফ্রান্সের বিভিন্ন শহরের বড় বড় মঞ্চে এবং পথনাটকে শোয়েব মোজাম্মেল এখন নিয়মিত পারফর্মার।

শোয়েবদের গ্রুপের একটি নাটক মঞ্চায়িত হচ্ছে। গত ১৩ ডিসেম্বর ২০২৩ থেকে শুরু হচ্ছে শোয়েব মোজাম্মেলের নতুন নাটক ‘লে জ্যও দ্য লা মনটাইন Les Geants de la Montgne’. এটি নাটকটির দ্বিতীয় দফার প্রদর্শনী। সেন্টার ড্রামাটিক ন্যাশনাল, লা কমিউন ওভারভিলায় ২০ ডিসেম্বর ২০২৩ পর্যন্ত টানা আটদিন প্রতিদিন সন্ধ্যায় চলবে নাটকটির প্রদর্শনী।

প্যারিসের উপকন্ঠে কেতসীমার পাশেই আন্দ্রে কারমান পার্ক সংলগ্ন থিয়েটারে নাটকটি দেখতে রোববার গিয়েছিলাম নাট্যব্যক্তিত্ব শোয়েব মোজাম্মেল এর ব্যক্তিগত আমন্ত্রণে। আমি ভাবলাম এধরনের আয়োজনে হয়তো সব মিলিয়ে জনাদশেক দর্শক হবে। কিন্তু গিয়ে দেখলাম অডিটোরিয়াম প্রায় ভরে গেছে! সব দর্শকই খোদ ফরাসী! রীতিমত টিকেট কেটে তারা প্রদর্শনী দেখতে এসেছে! আর আমরা ৩/৪ জন নাট্যজন শোয়েব এর দেয়া বিশেষ টিকেটের দর্শক সেজে এসেছি!

টানা ৩ ঘন্টার নাটকে অডিটোরিয়ামে পিনপতন নীরবতায় দর্শকরা অভিনয় উপভোগ করে।

জানা যায়, এই প্রদর্শনীর পর ফ্রান্সের আরো অনেকগুলো শহরেও নাটকটির প্রদর্শনী চলবে।

শোয়েব মোজাম্মেল আমাদের বাংলাদেশের গর্ব। শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতিতে সমৃদ্ধ এই প্যারিস শহরে শোয়েবদেরই অভিবাসন সার্থকতা লাভ করেছে।

আলোচ্য নাটকে কয়েকটি সংলাপ আছে বাংলায়, একেবারে খোদ বাংলায়! সেই সংলাপগুলো শোয়েবের মুখেই উচ্চারিত! এ এক ভিন্ন মাত্রার অনুভূতি, যখন ফরাসী নাটকে আচমকা বাংলায় সংলাপ উচ্চারিত হয়! শোয়েব জানালেন, নাটকের পরিচালকের আগ্রহেই বাংলা সংলাপ সংযোজন করা হয়েছে।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

লক ডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

যুক্তরাজ্যে করোনার মধ্যেই শিশুদের মাঝে নতুন রোগের হানা

কেবল উপবাসের নামই সিয়াম নয়, প্রকৃত মানুষ হওয়ার শিক্ষাই সিয়াম

ফরাসি নাট্যমঞ্চে বাংলাদেশি শোয়েব

আপডেট সময় ১০:১৮:৫৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০২৩

নজমুল কবির:

Pascal Batigne, Juan Antonio Crespillo, Sylvia Etcheto, Olivier Horeau, Anne-Sophie Mage, Isabel Oed, Laurent Prache – এই নামগুলোর সাথে আরো একটি নাম Mohammad Muzammal Hossain Soheb!! এ নামটি চোখে পড়লে আপনার বিশ্বাস হবার কথা নয় যে ইনি একজন ফ্রান্সপ্রবাসী বাংলাদেশী! এবং এটিও বিশ্বাস করা অনেকটা কঠিন যে উক্ত অভিনেতাদের সাথে একই মঞ্চে অভিনয় করে যাচ্ছে একজন শোয়েব, একজন বাংলাদেশী! ফরাসী মূলধারার নাট্যচর্চায় একজন সক্রিয় অভিনেতা, বাংলাদেশের শোয়েব মোজাম্মেল।।

শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি আর রোমান্টিকতার দেশ ফ্রান্স। অতীতে বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে শিল্প-সাহিত্য চর্চার জন্য ফ্রান্সে এসেছে। এখন অবশ্য এদেশে আগমনের কারণ ভিন্ন। কেউ রাজনৈতিক কারনে, কেউ অর্থনৈতিক কারণে এদেশে আসে। তবে দ্বিতীয় কারনটিই এখন বড় ভূমিকা রাখছে, বিশেষতঃ অভিবাসীদের এই জনস্রোতে তা স্পষ্টতঃই প্রতীয়মান। আমাদের প্রায় সকলেই এই দ্বিতীয় কারণেই এদেশে আসা।
তবে এদেশে যে যে কারনেই এসে থাকি তার ব্যতিক্রম কারনও থাকে বই কী!

অর্থনৈতিক কারণটাকে প্রতিনিয়ত কুর্নিশ করেও কেউ কেউ শিল্প-সাহিত্য চর্চায়ও নিজেকে নিমগ্ন রাখে। মগজে এবং মননে কিছু নেশা খুব করে জেঁকে বসে। সেটিকে উপেক্ষা করবার উপায় থাকে না। বাংলাদেশের সন্তান শোয়েব এমন-ই একজন যে তার মেধা-শ্রম আর নিয়মিত চর্চা দিয়ে ফরাসী মূলধারার নাট্যগ্রুপে নিজের অবস্থান প্রতিষ্ঠা করেছে। ফরাসী মূলধারার মঞ্চ নাটকে তিনি একজন নিয়মিত পারফর্মার।

২০১৬ সাল থেকে তিনি নাট্যজগতে নেশার টান অনুভব করেন। যদিও ভাষাগত দুর্বলতা তাকে কিছুটা দমিয়ে রাখে। কিন্তু অদম্য আগ্রহ এবং নিয়মিত চর্চা তাকে ফরাসী অভিনেতাদের সাথে তাল মিলিয়ে অভিনয় করতে সাফল্য এনে দেয়।

শোয়েব মোজাম্মেল ছোট বেলা থেকেই অভিনয়ের প্রতি ঝোঁক ছিলো। দেশে থাকাকালীন শিশুশিল্পী হিসেবে অভিনয়ে হাতেখড়ি। এদেশে এসে তার সেই চর্চায় নতুন বাতাসের দোলা লেগেছে। নাট্যদলের সাথে থেকে অভিনয়কে আরো বোঝার চেষ্টা করেছে। তীব্র টান অনুভব করেছে। কিন্তু ভাষাগত দুর্বলতা তাকে দমিয়ে রাখলেও ইচ্ছেশক্তি ছিলো প্রবল। তাই তাকে প্রথমতঃ একটি নাটকে অভিনয় করতে হয় যেটিতে কেবল এক্সপ্রেশন ছিলো, সংলাপ ছিলো না! সেই থেকেই তার মঞ্চে উপস্থিতি।

ধীরে ধীরে ফরাসী ভাষাকেও রপ্ত করার চেষ্টা চলতে থাকে। পাশাপাশি অভিনয়। এমনি করে ধীরে ধীরে তার মঞ্চে ওঠা। এখন পরিচালক নিয়মিতই ডাকেন শোয়েবকে, মঞ্চ নাটকের নতুন নতুন প্রজেক্টে। ফ্রান্সের বিভিন্ন শহরের বড় বড় মঞ্চে এবং পথনাটকে শোয়েব মোজাম্মেল এখন নিয়মিত পারফর্মার।

শোয়েবদের গ্রুপের একটি নাটক মঞ্চায়িত হচ্ছে। গত ১৩ ডিসেম্বর ২০২৩ থেকে শুরু হচ্ছে শোয়েব মোজাম্মেলের নতুন নাটক ‘লে জ্যও দ্য লা মনটাইন Les Geants de la Montgne’. এটি নাটকটির দ্বিতীয় দফার প্রদর্শনী। সেন্টার ড্রামাটিক ন্যাশনাল, লা কমিউন ওভারভিলায় ২০ ডিসেম্বর ২০২৩ পর্যন্ত টানা আটদিন প্রতিদিন সন্ধ্যায় চলবে নাটকটির প্রদর্শনী।

প্যারিসের উপকন্ঠে কেতসীমার পাশেই আন্দ্রে কারমান পার্ক সংলগ্ন থিয়েটারে নাটকটি দেখতে রোববার গিয়েছিলাম নাট্যব্যক্তিত্ব শোয়েব মোজাম্মেল এর ব্যক্তিগত আমন্ত্রণে। আমি ভাবলাম এধরনের আয়োজনে হয়তো সব মিলিয়ে জনাদশেক দর্শক হবে। কিন্তু গিয়ে দেখলাম অডিটোরিয়াম প্রায় ভরে গেছে! সব দর্শকই খোদ ফরাসী! রীতিমত টিকেট কেটে তারা প্রদর্শনী দেখতে এসেছে! আর আমরা ৩/৪ জন নাট্যজন শোয়েব এর দেয়া বিশেষ টিকেটের দর্শক সেজে এসেছি!

টানা ৩ ঘন্টার নাটকে অডিটোরিয়ামে পিনপতন নীরবতায় দর্শকরা অভিনয় উপভোগ করে।

জানা যায়, এই প্রদর্শনীর পর ফ্রান্সের আরো অনেকগুলো শহরেও নাটকটির প্রদর্শনী চলবে।

শোয়েব মোজাম্মেল আমাদের বাংলাদেশের গর্ব। শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতিতে সমৃদ্ধ এই প্যারিস শহরে শোয়েবদেরই অভিবাসন সার্থকতা লাভ করেছে।

আলোচ্য নাটকে কয়েকটি সংলাপ আছে বাংলায়, একেবারে খোদ বাংলায়! সেই সংলাপগুলো শোয়েবের মুখেই উচ্চারিত! এ এক ভিন্ন মাত্রার অনুভূতি, যখন ফরাসী নাটকে আচমকা বাংলায় সংলাপ উচ্চারিত হয়! শোয়েব জানালেন, নাটকের পরিচালকের আগ্রহেই বাংলা সংলাপ সংযোজন করা হয়েছে।