ঢাকা ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
প্রবাসে বাংলার সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ধরে রাখার লক্ষ্যে রোমে বৃহত্তম ঢাকাবাসীর পিঠা উৎসব নতুন তত্ত্ব ও জ্ঞান সৃষ্টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল উদ্দেশ্যঃ ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক ফ্রান্স দর্পণ পত্রিকার সম্পাদকের ভাইয়ের মৃত্যুতে প্যারিসে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ইপিএস কমিউনিটি ইন ফ্রান্স এর উদ্যোগে মহান বিজয় দিবস পালিত গ্লোবাল জালালাবাদ এসোসিয়েশন ফ্রান্সের নবগঠিত কমিটির আত্মপ্রকাশ ফরাসি নাট্যমঞ্চে বাংলাদেশি শোয়েব বালাগঞ্জে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত রুপালী ব্যাংক লিমিটেড সুলতানপুর শাখার উদ্যোগে প্রকাশ্যে কৃষি ও পল্লী ঋণ বিতরণ অনুষ্ঠিত সাজাপ্রাপ্ত এক আসামীকে গ্রেফতার করেছে বালাগঞ্জ থানায় পুলিশ গহরপুরে কৃতি ফুটবলার লায়েক আহমদ সংবর্ধিত; জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে লেখাপড়ার গুরুত্ব অনুভব করেছি

ফ্রান্সে আসতে পারে তৃতীয় বারের মত লকডাউন

  • আপডেট সময় ১২:৩৪:৩৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১
  • ৭৬ বার পড়া হয়েছে

ফ্রান্সের মেডিকেল বিষয়ক শীর্ষ উপদেষ্টা প্রফেসর জ্যাঁ-ফ্রাসিস ডেলফ্রাসি বলেছেন, করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য খুব শিগগিরই দেশজুড়ে তৃতীয় লকডাউন দেয়া হতে পারে। গত সপ্তাহে সেখানে কঠোর কারফিউ দেয়া হয়েছে। তা সত্ত্বেও করোনা আক্রান্তের সংখ্যা হু হু করে বাড়ছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি। এতে বলা হয়, ফ্রান্সের বিজ্ঞানীদের কাউন্সিলের প্রধান প্রফেসর ডেলফ্রাসি করোনা ইস্যুতে নেতাদের পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, জরুরি অবস্থা চলছে। তার মধ্যেও সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ জন্য দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

কারণ, নতুন ধরনের করোনা ভাইরাস যে গতিতে সংক্রমণ বৃদ্ধি করেছে তা নিয়ে উদ্বেগ বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেছেন, এর আগে প্রথমবার বৃটেনে নতুন যে করোনা ভাইরাসের ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত করা হয়েছে তা খুবই সংক্রামক। বর্তমানে ফ্রান্সে যে পরিমাণ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন এই ভাইরাসে, তার মধ্যে শতকরা ৭ থেকে ৯ ভাগই এই ভাইরাসের সংক্রমণ। এই সংক্রমণকে থামাতে হবে। তবে তিনি বলেন, ইউরোপের অন্য দেশগুলোর তুলনায় ফ্রান্সের অবস্থা ভাল। কিন্তু তিনি ভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্টকে দ্বিতীয় মহামারির সমতুল্য বলে মনে করেন। প্রফেসর ডেলফ্রেসি বলেন, আমরা যদি বিধিনিষেধ আরো কঠোর না করি, তাহলে মধ্য মার্চ থেকে অত্যন্ত কঠিন একটি অবস্থায় নিজেদেরকে দেখতে পাবো। তিনি বিএফএম টেলিভিশনকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে এসব কথা বলেন। ফ্রান্সে আরো কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করার প্রয়োজন আছে কিনা তা নিয়ে আলোচনা করতে বুধবার বৈঠকে বসার কথা রয়েছে ফরাসি সরকারের। তবে এখন পর্যন্ত জানা যাচ্ছে অনেক সরকারি কর্মকর্তা তৃতীয় লকডাউন দেয়ার বিরোধী। তারা এক্ষেত্রে বেশি রাত পর্যন্ত কারফিউ দেয়ার পক্ষে, যাতে স্কুলগুলো খোলা রাখা যায়। ফ্রান্সে এখন সন্ধ্যা ৬টা থেকে কারফিউ বহাল আছে। কিন্তু গত সাতদিনে সংক্রমণের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। গড়ে প্রতিদিন সেখানে আক্রান্ত হচ্ছেন কমপক্ষে ২০ হাজার মানুষ। এ অবস্থায় ফরাসি প্রধানমন্ত্রী জ্যাঁ ক্যাসটেক্স বলেছেন, অবস্থার আরো অবনতি হলে তিনি বিলম্ব না করে বিধিনিষেধ আরো কঠোর করবেন।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

লক ডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

যুক্তরাজ্যে করোনার মধ্যেই শিশুদের মাঝে নতুন রোগের হানা

প্রবাসে বাংলার সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ধরে রাখার লক্ষ্যে রোমে বৃহত্তম ঢাকাবাসীর পিঠা উৎসব

ফ্রান্সে আসতে পারে তৃতীয় বারের মত লকডাউন

আপডেট সময় ১২:৩৪:৩৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১

ফ্রান্সের মেডিকেল বিষয়ক শীর্ষ উপদেষ্টা প্রফেসর জ্যাঁ-ফ্রাসিস ডেলফ্রাসি বলেছেন, করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য খুব শিগগিরই দেশজুড়ে তৃতীয় লকডাউন দেয়া হতে পারে। গত সপ্তাহে সেখানে কঠোর কারফিউ দেয়া হয়েছে। তা সত্ত্বেও করোনা আক্রান্তের সংখ্যা হু হু করে বাড়ছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি। এতে বলা হয়, ফ্রান্সের বিজ্ঞানীদের কাউন্সিলের প্রধান প্রফেসর ডেলফ্রাসি করোনা ইস্যুতে নেতাদের পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, জরুরি অবস্থা চলছে। তার মধ্যেও সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ জন্য দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

কারণ, নতুন ধরনের করোনা ভাইরাস যে গতিতে সংক্রমণ বৃদ্ধি করেছে তা নিয়ে উদ্বেগ বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেছেন, এর আগে প্রথমবার বৃটেনে নতুন যে করোনা ভাইরাসের ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত করা হয়েছে তা খুবই সংক্রামক। বর্তমানে ফ্রান্সে যে পরিমাণ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন এই ভাইরাসে, তার মধ্যে শতকরা ৭ থেকে ৯ ভাগই এই ভাইরাসের সংক্রমণ। এই সংক্রমণকে থামাতে হবে। তবে তিনি বলেন, ইউরোপের অন্য দেশগুলোর তুলনায় ফ্রান্সের অবস্থা ভাল। কিন্তু তিনি ভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্টকে দ্বিতীয় মহামারির সমতুল্য বলে মনে করেন। প্রফেসর ডেলফ্রেসি বলেন, আমরা যদি বিধিনিষেধ আরো কঠোর না করি, তাহলে মধ্য মার্চ থেকে অত্যন্ত কঠিন একটি অবস্থায় নিজেদেরকে দেখতে পাবো। তিনি বিএফএম টেলিভিশনকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে এসব কথা বলেন। ফ্রান্সে আরো কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করার প্রয়োজন আছে কিনা তা নিয়ে আলোচনা করতে বুধবার বৈঠকে বসার কথা রয়েছে ফরাসি সরকারের। তবে এখন পর্যন্ত জানা যাচ্ছে অনেক সরকারি কর্মকর্তা তৃতীয় লকডাউন দেয়ার বিরোধী। তারা এক্ষেত্রে বেশি রাত পর্যন্ত কারফিউ দেয়ার পক্ষে, যাতে স্কুলগুলো খোলা রাখা যায়। ফ্রান্সে এখন সন্ধ্যা ৬টা থেকে কারফিউ বহাল আছে। কিন্তু গত সাতদিনে সংক্রমণের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। গড়ে প্রতিদিন সেখানে আক্রান্ত হচ্ছেন কমপক্ষে ২০ হাজার মানুষ। এ অবস্থায় ফরাসি প্রধানমন্ত্রী জ্যাঁ ক্যাসটেক্স বলেছেন, অবস্থার আরো অবনতি হলে তিনি বিলম্ব না করে বিধিনিষেধ আরো কঠোর করবেন।