ঢাকা ০৮:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
তরুণ উদ্যোক্তা মাসুদ মিয়া-আয়ুব হাসানের যৌথ প্রয়াসের প্রতিষ্ঠান পিংক সিটি নিউ স্টার ফুটবল ক্লাব রতনপুরের সহসভাপতি সাইফুল ইসলাম সংবর্ধিত বালাগঞ্জে শান্তিপুর্ণভাবে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন : চমক দেখিয়ে আনহার মিয়া চেয়ারম্যান নির্বাচিত ফ্রান্সে বাংলাদেশি অভিবাসীদের জীবনমান উন্নয়নে ফরাসি জাতীয়তা বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত প্যারিসে Point d’Aide – এইড পয়েন্ট এর নতুন অফিসের উদ্বোধন তরুণ সাহিত্যিক সাদাত হোসাইনকে প্যারিসে সংবর্ধনা দিলো ফ্রান্সপ্রবাসী বাংলাদেশীরা গাজীপুর জেলা সমিতি,ফ্রান্স’র দ্বি বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত : ফারুক খান সভাপতি, জুয়েল সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত কেবল উপবাসের নামই সিয়াম নয়, প্রকৃত মানুষ হওয়ার শিক্ষাই সিয়াম ফ্রান্সে একটি সর্বজন গ্রহণযোগ্য ‘বাংলাদেশ সমিতি’র তাগিদ, একটি প্রস্তাবনা শিশু কিশোরদের নানা ইভেন্ট নিয়ে ইপিএস কমিউনিটি ফ্রান্সের স্বাধীনতা দিবস পালন

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ী পেলেন সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি

  • আপডেট সময় ০৯:২৯:৪৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৬ জুলাই ২০১৮
  • ২৫৮ বার পড়া হয়েছে

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত বহুল পরিচিত রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ী মুহাম্মদ সিরাজ আলিকে যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অফ সাসেক্স সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি দিয়েছে।৬২ বছর বয়সী এই কৃতি ব্যবসায়ী এবং সমাজসেবী দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যান্ডের এসেক্স অঞ্চলের থার্কে বসবাস করেন। দীর্ঘদিন ধরে রেস্টুরেন্ট ব্যবসায় রাখা তার অবদান এবং এবং সমাজসেবামূলক তৎপরতার স্বীকৃতি হিসেবে গত সপ্তাহে তাকে সম্মানসূচক ডিগ্রিটি প্রদান করা হয়।

ইউনিভার্সিটি অফ সাসেক্স তার সম্পর্কে লিখেছে, ‘এসেক্সে ভারতীয় খাবারকে পরিচিত করে তুলতে সিরাজ পথপ্রদর্শকের ভূমিকা পালন করেছেন। আতিথিয়তা এবং ব্যবসা সংক্রান্ত তৎপরতার মাধ্যমে তিনি ৩০ লাখ পাউন্ড সেবামূলক কাজের জন্য সংগ্রহ করতে পেরেছেন। এতে তিনি বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিকদের জন্য হয়ে উঠেছেন অনুসরণীয় এক ব্যক্তিত্ব। আট বছর ধরে সিরাজ এসেক্স জামে মসজিদ এবং সাউথএন্ড-অন-সিতে অবস্থিত সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি একই সঙ্গে থার্ক বাংলাদেশ কল্যাণ সমিতির সভাপতি।’

মুহাম্মদ সিরাজ আলি থেকে এখন ডক্টর আলি হয়ে ওঠা সিরাজ যুক্তরাজ্যে এসেছিলেন ১১ বছর বয়সে। তার ইংরেজি ভাষা জ্ঞান তখন সমৃদ্ধ ছিল না। আর্থিক অবস্থায়ও ছিল খারাপ। তারপরও ১৯৭৯ সালে স্ট্যানফোর্ড–লি–হোপে ‘নিউ কারি সেন্টার’ নামের রেস্টুরেন্ট ব্যবসা শুরু করেন তিনি। তার এ উদ্যোগের মাধ্যমেই প্রথমবারের মতো থার্কের সঙ্গে পরিচয় হয় দক্ষিণ এশীয় খাবারের। নিজের এলাকায় পাঁচটি রেস্টুরেন্ট প্রতিষ্ঠার পর তিনি বাস্তবায়ন শুরু করেন তার বড় স্বপ্নটির। ১৯৯৫ সালে বেনফ্লিটে যাত্রা শুরু করে তার রেস্টুরেন্ট ‘মহারাজা’। সংশ্লিষ্ট এলাকার ভারতীয় খাবারের রেস্টুরেন্টগুলোর মধ্যে তার ‘মহারাজা’ এখন পর্যন্ত অন্যতম জনপ্রিয় একটি গন্তব্য।

মহারাজা রেস্টুরেন্ট
মহারাজা রেস্টুরেন্ট
ডক্টর আলি মন্তব্য করেছেন, ‘আমাকে ও আমার পরিশ্রমকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে স্বীকৃতি দেওয়ায় আমি গর্বিত। রেস্টুরেন্ট পরিচালনা কারাটাকে আমি কখনও শুধু খাবার সংক্রান্ত বিষয় হিসেবে দেখিনি। বরং এর মাধ্যমে সাংস্কৃতিক বিভাজনের দেওয়াল ভেঙে ফেলা যায়, যোগাযোগ প্রতিষ্ঠা করা যায় এবং একে অপরের পাশে দাঁড়াবার মানসিকতা তৈরি হয়। এসব আমার জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল বলেই কয়েক দশক ধরে এসেক্স ও অন্যান্য এলাকার সমাজসেবামূলক কাজের জন্য আমি লাখ লাখ পাউন্ডের তহবিল গড়ে তুলেছি। আমি সৌভাগ্যবান, যুক্তরাজ্যের সবচেয়ে প্রভাবশালী সংসদ সদস্যদের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ হয়েছে আমার।’
৪৭ বছরের কর্ম জীবনে সিরাজ মাল্টিপল স্ক্লেরোসিস সোসাইটি, মোটর নিউরন ডিজিজেস, এনএসপিসিসি, ব্রিটিশ রেডক্রস এবং ব্রেস্ট ক্যান্সার অ্যাওয়ারনেসসহ আরও অনেকগুলো দাতব্য সংস্থার সঙ্গে জড়িত হয়েছেন। তিনি বাংলাদেশে বিদ্যালয় ও হাসপাতালও গড়ে তুলেছেন। তার রাঁধা খাবার গেছে কঙ্গোতে দায়িত্বপালরত জাতিসংঘের সেনা সদস্যদের জন্য। যুক্তরাজ্য সংসদও সিরাজকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল তার রাঁধা খাবারের স্বাদ নিতে।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

লক ডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

যুক্তরাজ্যে করোনার মধ্যেই শিশুদের মাঝে নতুন রোগের হানা

তরুণ উদ্যোক্তা মাসুদ মিয়া-আয়ুব হাসানের যৌথ প্রয়াসের প্রতিষ্ঠান পিংক সিটি

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ী পেলেন সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি

আপডেট সময় ০৯:২৯:৪৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৬ জুলাই ২০১৮

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত বহুল পরিচিত রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ী মুহাম্মদ সিরাজ আলিকে যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অফ সাসেক্স সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি দিয়েছে।৬২ বছর বয়সী এই কৃতি ব্যবসায়ী এবং সমাজসেবী দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যান্ডের এসেক্স অঞ্চলের থার্কে বসবাস করেন। দীর্ঘদিন ধরে রেস্টুরেন্ট ব্যবসায় রাখা তার অবদান এবং এবং সমাজসেবামূলক তৎপরতার স্বীকৃতি হিসেবে গত সপ্তাহে তাকে সম্মানসূচক ডিগ্রিটি প্রদান করা হয়।

ইউনিভার্সিটি অফ সাসেক্স তার সম্পর্কে লিখেছে, ‘এসেক্সে ভারতীয় খাবারকে পরিচিত করে তুলতে সিরাজ পথপ্রদর্শকের ভূমিকা পালন করেছেন। আতিথিয়তা এবং ব্যবসা সংক্রান্ত তৎপরতার মাধ্যমে তিনি ৩০ লাখ পাউন্ড সেবামূলক কাজের জন্য সংগ্রহ করতে পেরেছেন। এতে তিনি বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিকদের জন্য হয়ে উঠেছেন অনুসরণীয় এক ব্যক্তিত্ব। আট বছর ধরে সিরাজ এসেক্স জামে মসজিদ এবং সাউথএন্ড-অন-সিতে অবস্থিত সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি একই সঙ্গে থার্ক বাংলাদেশ কল্যাণ সমিতির সভাপতি।’

মুহাম্মদ সিরাজ আলি থেকে এখন ডক্টর আলি হয়ে ওঠা সিরাজ যুক্তরাজ্যে এসেছিলেন ১১ বছর বয়সে। তার ইংরেজি ভাষা জ্ঞান তখন সমৃদ্ধ ছিল না। আর্থিক অবস্থায়ও ছিল খারাপ। তারপরও ১৯৭৯ সালে স্ট্যানফোর্ড–লি–হোপে ‘নিউ কারি সেন্টার’ নামের রেস্টুরেন্ট ব্যবসা শুরু করেন তিনি। তার এ উদ্যোগের মাধ্যমেই প্রথমবারের মতো থার্কের সঙ্গে পরিচয় হয় দক্ষিণ এশীয় খাবারের। নিজের এলাকায় পাঁচটি রেস্টুরেন্ট প্রতিষ্ঠার পর তিনি বাস্তবায়ন শুরু করেন তার বড় স্বপ্নটির। ১৯৯৫ সালে বেনফ্লিটে যাত্রা শুরু করে তার রেস্টুরেন্ট ‘মহারাজা’। সংশ্লিষ্ট এলাকার ভারতীয় খাবারের রেস্টুরেন্টগুলোর মধ্যে তার ‘মহারাজা’ এখন পর্যন্ত অন্যতম জনপ্রিয় একটি গন্তব্য।

মহারাজা রেস্টুরেন্ট
মহারাজা রেস্টুরেন্ট
ডক্টর আলি মন্তব্য করেছেন, ‘আমাকে ও আমার পরিশ্রমকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে স্বীকৃতি দেওয়ায় আমি গর্বিত। রেস্টুরেন্ট পরিচালনা কারাটাকে আমি কখনও শুধু খাবার সংক্রান্ত বিষয় হিসেবে দেখিনি। বরং এর মাধ্যমে সাংস্কৃতিক বিভাজনের দেওয়াল ভেঙে ফেলা যায়, যোগাযোগ প্রতিষ্ঠা করা যায় এবং একে অপরের পাশে দাঁড়াবার মানসিকতা তৈরি হয়। এসব আমার জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল বলেই কয়েক দশক ধরে এসেক্স ও অন্যান্য এলাকার সমাজসেবামূলক কাজের জন্য আমি লাখ লাখ পাউন্ডের তহবিল গড়ে তুলেছি। আমি সৌভাগ্যবান, যুক্তরাজ্যের সবচেয়ে প্রভাবশালী সংসদ সদস্যদের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ হয়েছে আমার।’
৪৭ বছরের কর্ম জীবনে সিরাজ মাল্টিপল স্ক্লেরোসিস সোসাইটি, মোটর নিউরন ডিজিজেস, এনএসপিসিসি, ব্রিটিশ রেডক্রস এবং ব্রেস্ট ক্যান্সার অ্যাওয়ারনেসসহ আরও অনেকগুলো দাতব্য সংস্থার সঙ্গে জড়িত হয়েছেন। তিনি বাংলাদেশে বিদ্যালয় ও হাসপাতালও গড়ে তুলেছেন। তার রাঁধা খাবার গেছে কঙ্গোতে দায়িত্বপালরত জাতিসংঘের সেনা সদস্যদের জন্য। যুক্তরাজ্য সংসদও সিরাজকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল তার রাঁধা খাবারের স্বাদ নিতে।