ঢাকা ১০:২৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
প্রবাসে বাংলার সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ধরে রাখার লক্ষ্যে রোমে বৃহত্তম ঢাকাবাসীর পিঠা উৎসব নতুন তত্ত্ব ও জ্ঞান সৃষ্টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল উদ্দেশ্যঃ ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক ফ্রান্স দর্পণ পত্রিকার সম্পাদকের ভাইয়ের মৃত্যুতে প্যারিসে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ইপিএস কমিউনিটি ইন ফ্রান্স এর উদ্যোগে মহান বিজয় দিবস পালিত গ্লোবাল জালালাবাদ এসোসিয়েশন ফ্রান্সের নবগঠিত কমিটির আত্মপ্রকাশ ফরাসি নাট্যমঞ্চে বাংলাদেশি শোয়েব বালাগঞ্জে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত রুপালী ব্যাংক লিমিটেড সুলতানপুর শাখার উদ্যোগে প্রকাশ্যে কৃষি ও পল্লী ঋণ বিতরণ অনুষ্ঠিত সাজাপ্রাপ্ত এক আসামীকে গ্রেফতার করেছে বালাগঞ্জ থানায় পুলিশ গহরপুরে কৃতি ফুটবলার লায়েক আহমদ সংবর্ধিত; জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে লেখাপড়ার গুরুত্ব অনুভব করেছি

বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ফরাসী নাগরিক নয়ন এনকেঃ মিউনিসিপ্যাল নির্বাচনে প্রার্থীতা লাভ করেছেন

  • আপডেট সময় ০৩:৩১:০০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২০
  • ২৮৪ বার পড়া হয়েছে

Warning: Attempt to read property "post_excerpt" on null in /home/u305720254/domains/francedorpan.com/public_html/wp-content/themes/newspaper-pro/template-parts/common/single_two.php on line 117

ডেস্কঃ ফ্রান্সে আসন্ন মিউনিসিপ্যালিটি নির্বাচনে বাংলাদেশী সন্তান নয়ন এনকে স্থানীয় একটি এলাকা থেকে কাউন্সিলর হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে।
– La France Insoumise (LFI) দলের হয়ে তিনি এবারের নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। তিনি জানান যে, তার কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করা নিশ্চিত। তবে তিনি চেষ্টা করছেন ডেপুটি মেয়র হিসেবে দলের মনোনয়ন লাভের।

নয়ন Vigneux sur seine শহরের দলীয় দায়িত্ব পালন করছেন এবং সেখান থেকেই তিনি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

২০১৮ সালে নয়ন এই দলে যোগদান করেন এবং তার কর্মদক্ষতা দিয়ে কিছুদিনের মধ্যেই Vigneux sur seine এর দায়িত্ব লাভ করেন।

ফ্রান্সের অনুষ্ঠিত আগের প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচনে তার দলের প্রার্থী জন লুক মেলন্স ভোটপ্রাপ্তির দিক থেকে ৪র্থ অবস্থানে ছিলেন। La France Insoumise (LFI) দলটি ২০১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং রাজনীততে বেশ দ্রুত দলটি জনপ্রিয়তা লাভ করছে।

মেধাবী, পরোপকারী, কমিউনিটিবান্ধব নয়ন কিয়াং এর সময়ানুবর্তিতা আর কর্তব্য পালনে দায়িত্বশীলতা তাকে রাজনীতিতেও সাফল্য বয়ে আনছে।

বাংলাদেশ থেকে দশ বছর বয়সে ফ্রান্সে আসা নয়ন কিয়াং এখন ফ্রান্সের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক। ফরাসী ভাষায় বলে ‘Enseignant’.
Université Paris Est Marne-la-Vallée ক্যাম্পাসের Management Department এর International Transport বিষয়ের ওপর তিনি পড়ান। গত বছরই মাস্টার্স শেষ করে তিনি শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেছেন। অন্যদিকেও তার ব্যস্ততা রয়েছে। ফ্রান্সের সরকারী বিভিন্ন শাখায় যেমন, OFII, OFPRA, Prefecteur, Hopital প্রভৃতি স্থানে দোভাষী হিসেবে কাজ করেন।

নয়নরা তিন ভাই-বোন। তার বোন একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফ্যাশন ডিজাইনের ওপর সর্বোচ্চ ডিগ্রি লাভ করেন। ভাই Université d’EVRY থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করে EROP নামে একটি প্রতিষ্ঠানে Concepteur Industriel হিসেবে কর্মরত আছেন।

মানিকগঞ্জের সন্তান নয়ন International Business Management এবং Conseil Etudes et Recherche এর ওপর ডাবল মাস্টার্স সম্পন্ন করেছে।

নয়ন একজন পরোপকারী মানুষ। তিনি নিজেই একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন দাড় করিয়েছেন ২০১৫ সালে। France Association of ChildEduc Bangladesh নামের এই সংস্থাটি ফরাসী সরকারের যথাযথ কর্তৃপক্ষের থেকে নিবন্ধনকৃত।

নয়ন ২০১৭ সালে বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন ফ্রান্স (বিসিএফ) এর সাথে যুক্ত হন। বিসিএফ ফ্রান্সের প্রধানতম সামাজিক সংগঠনগুলোর একটি যারা বাংলাদেশ কমিউনিটির নানা সমস্যা সমাধানে এবং কল্যাণে কাজ করছে। নয়ন এই সংগঠনেরই একজন সক্রিয় এবং গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। বিসিএফ এর এক্সিকিউটিভ মেম্বার নয়ন বিসিএফ এর প্রশাসনিক দিকটি দেখভাল করেন।

ফ্রান্সে বাংলাদেশী কমিউনিটিতে ফরাসী মূলধারার রাজনীতে সংশ্লিষ্টতা তেমন নেই বললেই চলে। ইংল্যান্ড, কানাডা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যেমন বাংলাদেশীরা বেশ দাপটের সাথেই রাজনীতি করছে এবং সফল হচ্ছে। ফ্রান্সে তেমনটি দেখা যায় না। সেদিক থেকে নয়ন কিয়াং একটি উদাহরন হয়ে থাকবে। বাংলাদেশ কমিউনিটির আশাবাদ, নয়ন এই চ্যালেঞ্জে বিজয়ী হয়ে বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করবে।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

লক ডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

যুক্তরাজ্যে করোনার মধ্যেই শিশুদের মাঝে নতুন রোগের হানা

প্রবাসে বাংলার সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ধরে রাখার লক্ষ্যে রোমে বৃহত্তম ঢাকাবাসীর পিঠা উৎসব

বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ফরাসী নাগরিক নয়ন এনকেঃ মিউনিসিপ্যাল নির্বাচনে প্রার্থীতা লাভ করেছেন

আপডেট সময় ০৩:৩১:০০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২০

ডেস্কঃ ফ্রান্সে আসন্ন মিউনিসিপ্যালিটি নির্বাচনে বাংলাদেশী সন্তান নয়ন এনকে স্থানীয় একটি এলাকা থেকে কাউন্সিলর হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে।
– La France Insoumise (LFI) দলের হয়ে তিনি এবারের নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। তিনি জানান যে, তার কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করা নিশ্চিত। তবে তিনি চেষ্টা করছেন ডেপুটি মেয়র হিসেবে দলের মনোনয়ন লাভের।

নয়ন Vigneux sur seine শহরের দলীয় দায়িত্ব পালন করছেন এবং সেখান থেকেই তিনি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

২০১৮ সালে নয়ন এই দলে যোগদান করেন এবং তার কর্মদক্ষতা দিয়ে কিছুদিনের মধ্যেই Vigneux sur seine এর দায়িত্ব লাভ করেন।

ফ্রান্সের অনুষ্ঠিত আগের প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচনে তার দলের প্রার্থী জন লুক মেলন্স ভোটপ্রাপ্তির দিক থেকে ৪র্থ অবস্থানে ছিলেন। La France Insoumise (LFI) দলটি ২০১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং রাজনীততে বেশ দ্রুত দলটি জনপ্রিয়তা লাভ করছে।

মেধাবী, পরোপকারী, কমিউনিটিবান্ধব নয়ন কিয়াং এর সময়ানুবর্তিতা আর কর্তব্য পালনে দায়িত্বশীলতা তাকে রাজনীতিতেও সাফল্য বয়ে আনছে।

বাংলাদেশ থেকে দশ বছর বয়সে ফ্রান্সে আসা নয়ন কিয়াং এখন ফ্রান্সের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক। ফরাসী ভাষায় বলে ‘Enseignant’.
Université Paris Est Marne-la-Vallée ক্যাম্পাসের Management Department এর International Transport বিষয়ের ওপর তিনি পড়ান। গত বছরই মাস্টার্স শেষ করে তিনি শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেছেন। অন্যদিকেও তার ব্যস্ততা রয়েছে। ফ্রান্সের সরকারী বিভিন্ন শাখায় যেমন, OFII, OFPRA, Prefecteur, Hopital প্রভৃতি স্থানে দোভাষী হিসেবে কাজ করেন।

নয়নরা তিন ভাই-বোন। তার বোন একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফ্যাশন ডিজাইনের ওপর সর্বোচ্চ ডিগ্রি লাভ করেন। ভাই Université d’EVRY থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করে EROP নামে একটি প্রতিষ্ঠানে Concepteur Industriel হিসেবে কর্মরত আছেন।

মানিকগঞ্জের সন্তান নয়ন International Business Management এবং Conseil Etudes et Recherche এর ওপর ডাবল মাস্টার্স সম্পন্ন করেছে।

নয়ন একজন পরোপকারী মানুষ। তিনি নিজেই একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন দাড় করিয়েছেন ২০১৫ সালে। France Association of ChildEduc Bangladesh নামের এই সংস্থাটি ফরাসী সরকারের যথাযথ কর্তৃপক্ষের থেকে নিবন্ধনকৃত।

নয়ন ২০১৭ সালে বাংলাদেশ কমিউনিটি ইন ফ্রান্স (বিসিএফ) এর সাথে যুক্ত হন। বিসিএফ ফ্রান্সের প্রধানতম সামাজিক সংগঠনগুলোর একটি যারা বাংলাদেশ কমিউনিটির নানা সমস্যা সমাধানে এবং কল্যাণে কাজ করছে। নয়ন এই সংগঠনেরই একজন সক্রিয় এবং গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। বিসিএফ এর এক্সিকিউটিভ মেম্বার নয়ন বিসিএফ এর প্রশাসনিক দিকটি দেখভাল করেন।

ফ্রান্সে বাংলাদেশী কমিউনিটিতে ফরাসী মূলধারার রাজনীতে সংশ্লিষ্টতা তেমন নেই বললেই চলে। ইংল্যান্ড, কানাডা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যেমন বাংলাদেশীরা বেশ দাপটের সাথেই রাজনীতি করছে এবং সফল হচ্ছে। ফ্রান্সে তেমনটি দেখা যায় না। সেদিক থেকে নয়ন কিয়াং একটি উদাহরন হয়ে থাকবে। বাংলাদেশ কমিউনিটির আশাবাদ, নয়ন এই চ্যালেঞ্জে বিজয়ী হয়ে বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করবে।