ঢাকা ০৮:১৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
প্যারিসে Point d’Aide – এইড পয়েন্ট এর নতুন অফিসের উদ্বোধন তরুণ সাহিত্যিক সাদাত হোসাইনকে প্যারিসে সংবর্ধনা দিলো ফ্রান্সপ্রবাসী বাংলাদেশীরা গাজীপুর জেলা সমিতি,ফ্রান্স’র দ্বি বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত : ফারুক খান সভাপতি, জুয়েল সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত কেবল উপবাসের নামই সিয়াম নয়, প্রকৃত মানুষ হওয়ার শিক্ষাই সিয়াম ফ্রান্সে একটি সর্বজন গ্রহণযোগ্য ‘বাংলাদেশ সমিতি’র তাগিদ, একটি প্রস্তাবনা শিশু কিশোরদের নানা ইভেন্ট নিয়ে ইপিএস কমিউনিটি ফ্রান্সের স্বাধীনতা দিবস পালন জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন ফ্রান্স’র নতুন কমিটির পরিচিতি ও ইফতার প্যারিসে ‘নকশী বাংলা ফাউন্ডেশন সম্মাননা’ পেলেন ফ্রান্স দর্পণ নির্বাহী সম্পাদক ফেরদৌস করিম আখঞ্জী নানা আয়োজনে প্যারিসে সাফের আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালন ‘পাঠশালা’ – ফরাসী ভাষা শিক্ষার স্কুল উদ্বোধন

লক্ষাধিক অভিবাসন প্রত্যাশী জার্মানিতে বৈধতা পেতে যাচ্ছেন

  • আপডেট সময় ০৯:১১:৫৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৮ জুলাই ২০২২
  • ২০৬ বার পড়া হয়েছে

Warning: Attempt to read property "post_excerpt" on null in /home/u305720254/domains/francedorpan.com/public_html/wp-content/themes/newspaper-pro/template-parts/common/single_two.php on line 117

নিয়ম শিথিল করে এক লাখেরও বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীকে স্থায়ীভাবে জার্মানিতে থাকার সুযোগ দিতে চলেছে ওলাফ শলৎস সরকার৷ তবে অভিবাসীদের অধিকার সংস্থাগুলো মনে করছে নিয়ম আরো শিথিল করা উচিত৷

নির্বাচন-পূর্ব অঙ্গীকার অনুযায়ী আরো বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীর জার্মানিতে থাকার সুযোগ সৃষ্টির প্রক্রিয়া শুরু করেছে ওলাফ শলৎস সরকার৷ বুধবার ‘ডুলডুং’, অর্থাৎ ‘পর্যাপ্ত’ সহনশীলতা বজায় রেখে পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে জার্মানিতে থাকছেন, এমন মানুষদের জন্য স্থায়ীভাবে থাকার সুযোগ দেয়া এক প্যাকেজ অনুমোদন করেছে সরকার৷ ‘ডুলডুং’ হচ্ছে আশ্রয়ের আবেদন খারিজ হয়েছে, অথচ বড় কোনো সমস্যার কারণে দেশে ফিরতে পারছেন না, এমন অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সাময়িকভাবে থাকার অনুমতিপত্র৷ নিজের দেশে যুদ্ধ চলছে বা সেখানে ফিরলে মৃত্যু-ঝুঁকি অথবা গ্রেপ্তার হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে, অথবা জার্মানিতে পড়াশোনা করছেন বা কোনো প্রশিক্ষণে অংশ নিচ্ছেন- এমন ব্যক্তিদের, অথবা অন্তসত্ত্বা বা জটিল রোগে আক্রান্তদের সাধারণত এ ধরনের অনুমতিপত্র দেয়া হয়৷ এ অনুমতির মেয়াদ বিশেষ ক্ষেত্রে বারবার বাড়ানো গেলেও এতে চাকরি করার স্বীকৃত কোনো অধিকার থাকে না৷ চাইলে যে কোনো সময় দেশে ফেরানো যায় ডুলডুংধারীদের৷নতুন প্যাকেজ কার্যকর হলে এক লাখ ৩০ হাজারেরও বেশি ডুলডুংধারী অভিবাসনপ্রত্যাশীর জার্মানিতে স্থায়ী হওয়ার সুযোগ হবে৷এ সুখবর জানিয়ে জার্মানির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ন্যান্সি ফেজার টুইটারে লিখেছেন, ‘‘আমরা বৈচিত্র্যময় অভিবাসনের দেশ৷ এখন আমরা অন্তর্ভুক্তিকরণেও আারো ভালো  হতে চাই৷” তিনি জানান, নতুন প্যাকেজ অনুযায়ী, (অন্তত ২০২২ সালের পহেলা জানুয়ারি পর্যন্ত) যাদের পাঁচ বছরের ডুলডুং রয়েছে, তাদেরকে প্রাথমিকভাবে জার্মানিতে এক বছর থাকার অনুমতিপত্র (রেসিডেন্স পারমিট) দেয়া হবে৷ ওই এক বছরের মধ্যে জার্মান ভাষা শিখে এবং চাকরি জোগাড় করে নিজের এবং পরিবারের (যদি থাকে) খরচ বহনের সক্ষমতা অর্জনের মাধ্যমে জার্মানিতে থাকার সদিচ্ছার প্রমাণ রাখতে পারলে তাদের স্থায়ীভাবে থাকার অনুমতি দেয়া হবে৷তবে বড় ধরনের অপরাধে জড়িত ব্যক্তি, ভুল পরিচয়ে আবেদন করা ব্যক্তি বা একাই অনেক আবেদন করেছেন এমন ব্যক্তিদের এ সুযোগ দেয়া হবে না৷

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

লক ডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

যুক্তরাজ্যে করোনার মধ্যেই শিশুদের মাঝে নতুন রোগের হানা

প্যারিসে Point d’Aide – এইড পয়েন্ট এর নতুন অফিসের উদ্বোধন

লক্ষাধিক অভিবাসন প্রত্যাশী জার্মানিতে বৈধতা পেতে যাচ্ছেন

আপডেট সময় ০৯:১১:৫৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৮ জুলাই ২০২২

নিয়ম শিথিল করে এক লাখেরও বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীকে স্থায়ীভাবে জার্মানিতে থাকার সুযোগ দিতে চলেছে ওলাফ শলৎস সরকার৷ তবে অভিবাসীদের অধিকার সংস্থাগুলো মনে করছে নিয়ম আরো শিথিল করা উচিত৷

নির্বাচন-পূর্ব অঙ্গীকার অনুযায়ী আরো বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীর জার্মানিতে থাকার সুযোগ সৃষ্টির প্রক্রিয়া শুরু করেছে ওলাফ শলৎস সরকার৷ বুধবার ‘ডুলডুং’, অর্থাৎ ‘পর্যাপ্ত’ সহনশীলতা বজায় রেখে পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে জার্মানিতে থাকছেন, এমন মানুষদের জন্য স্থায়ীভাবে থাকার সুযোগ দেয়া এক প্যাকেজ অনুমোদন করেছে সরকার৷ ‘ডুলডুং’ হচ্ছে আশ্রয়ের আবেদন খারিজ হয়েছে, অথচ বড় কোনো সমস্যার কারণে দেশে ফিরতে পারছেন না, এমন অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সাময়িকভাবে থাকার অনুমতিপত্র৷ নিজের দেশে যুদ্ধ চলছে বা সেখানে ফিরলে মৃত্যু-ঝুঁকি অথবা গ্রেপ্তার হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে, অথবা জার্মানিতে পড়াশোনা করছেন বা কোনো প্রশিক্ষণে অংশ নিচ্ছেন- এমন ব্যক্তিদের, অথবা অন্তসত্ত্বা বা জটিল রোগে আক্রান্তদের সাধারণত এ ধরনের অনুমতিপত্র দেয়া হয়৷ এ অনুমতির মেয়াদ বিশেষ ক্ষেত্রে বারবার বাড়ানো গেলেও এতে চাকরি করার স্বীকৃত কোনো অধিকার থাকে না৷ চাইলে যে কোনো সময় দেশে ফেরানো যায় ডুলডুংধারীদের৷নতুন প্যাকেজ কার্যকর হলে এক লাখ ৩০ হাজারেরও বেশি ডুলডুংধারী অভিবাসনপ্রত্যাশীর জার্মানিতে স্থায়ী হওয়ার সুযোগ হবে৷এ সুখবর জানিয়ে জার্মানির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ন্যান্সি ফেজার টুইটারে লিখেছেন, ‘‘আমরা বৈচিত্র্যময় অভিবাসনের দেশ৷ এখন আমরা অন্তর্ভুক্তিকরণেও আারো ভালো  হতে চাই৷” তিনি জানান, নতুন প্যাকেজ অনুযায়ী, (অন্তত ২০২২ সালের পহেলা জানুয়ারি পর্যন্ত) যাদের পাঁচ বছরের ডুলডুং রয়েছে, তাদেরকে প্রাথমিকভাবে জার্মানিতে এক বছর থাকার অনুমতিপত্র (রেসিডেন্স পারমিট) দেয়া হবে৷ ওই এক বছরের মধ্যে জার্মান ভাষা শিখে এবং চাকরি জোগাড় করে নিজের এবং পরিবারের (যদি থাকে) খরচ বহনের সক্ষমতা অর্জনের মাধ্যমে জার্মানিতে থাকার সদিচ্ছার প্রমাণ রাখতে পারলে তাদের স্থায়ীভাবে থাকার অনুমতি দেয়া হবে৷তবে বড় ধরনের অপরাধে জড়িত ব্যক্তি, ভুল পরিচয়ে আবেদন করা ব্যক্তি বা একাই অনেক আবেদন করেছেন এমন ব্যক্তিদের এ সুযোগ দেয়া হবে না৷