ঢাকা ০২:২৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়াবে বাংলাদেশ দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশন: ফিলিস্তিন ও বাংলাদেশ দূতাবাসে বিশেষ বৈঠক মামুন হাওলাদার প্রবাসে বাংলার সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ধরে রাখার লক্ষ্যে রোমে বৃহত্তম ঢাকাবাসীর পিঠা উৎসব নতুন তত্ত্ব ও জ্ঞান সৃষ্টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল উদ্দেশ্যঃ ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক ফ্রান্স দর্পণ পত্রিকার সম্পাদকের ভাইয়ের মৃত্যুতে প্যারিসে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ইপিএস কমিউনিটি ইন ফ্রান্স এর উদ্যোগে মহান বিজয় দিবস পালিত গ্লোবাল জালালাবাদ এসোসিয়েশন ফ্রান্সের নবগঠিত কমিটির আত্মপ্রকাশ ফরাসি নাট্যমঞ্চে বাংলাদেশি শোয়েব বালাগঞ্জে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত রুপালী ব্যাংক লিমিটেড সুলতানপুর শাখার উদ্যোগে প্রকাশ্যে কৃষি ও পল্লী ঋণ বিতরণ অনুষ্ঠিত সাজাপ্রাপ্ত এক আসামীকে গ্রেফতার করেছে বালাগঞ্জ থানায় পুলিশ

শয়তানের দুষ্টচক্র ও সামাজিক বিচারহীনতা

  • আপডেট সময় ০৯:১২:০৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৪ জুন ২০২১
  • ১৬২ বার পড়া হয়েছে

Warning: Attempt to read property "post_excerpt" on null in /home/u305720254/domains/francedorpan.com/public_html/wp-content/themes/newspaper-pro/template-parts/common/single_two.php on line 117

ফয়ছল আহমেদ

ড: হেনরী কিসিন্জার এক সময় পরিহাস করে বাংলাদেশকে বলেছিলেন Bottomless Busked. কথাটা শুনতে গা জ্বালা করলে ও বর্তমান বাস্তবতা তার চেয়ে ও কঠিন। আমাদের দেশের GDP ঈর্ষনীয় (পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর তুলনায়) রেমিটেন্স নিয়ে আমরা গর্ব করি,গার্মেন্টস শিল্প লক্ষ লক্ষ তরুন তরুনীর আশার আলো,প্লাস্টিক বর্জের দূষনে, পাট বা সোনালী আঁশের কদর আবারো বন্ধ পাটকলগুলোয় লাভের সন্ধান দিচ্ছে।
মানুষের আয়, যান্ত্রিক সভ্যতার সুষ্টু ব্যবহার দেশের অর্থনীতির চাকাকে সম্মুখপানে ধাবিত করছে।তথাপি কিছু সংখ্যক উচ্চ বিত্ত Evil ghost or Evil mafia কৌশলে দেশের সিংহভাগ সম্পদ কুক্ষিগত করে সমানে বিদেশে টাকা পাচার করছে।

পাশাপাশি নিজের প্রভাব প্রতিপত্তির নির্লজ্জ অপব্যবহার করে সমাজে নানা ধরনের অপকর্ম যেমন -খুন, ধর্ষণ, জুলুম-নির্যাতন, টেন্ডারবাজি, সমাজের সাধারন নিরীহ মানুষকে ঠকিয়ে নিজের স্বার্থ হাসিল করা, ছলে বলে কৌশলে পদ-পদবি বাগিয়ে নিয়ে সমাজে নিজের কর্তৃত্ব জাহির করছে।

এছাড়াও অার এক শ্রেনীর Evil ghost ভিলেজ পলিটিক্স করে social injustice তৈরি করছে ও নেতৃত্বের লোভে সাধারন মানুষকে ব্যবহার করে সামাজিক অসংগতি সৃষ্টির মাধ্যমে ন্যায়বিচারকে কলুষিত করছে।

একদিকে দেশের রেমিটেন্স যোদ্ধারা বিদেশে কষ্টকর জীবনকে আলিঙ্গন করে দেশে প্রিয়জনের মুখে হাসি ফোটানোর প্রাণান্তকর প্রচেষ্টায় প্রকারান্তরে রেমিটেন্স প্রবাহ বৃদ্ধি, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ তথা দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করছে।
অন্যদিকে দেশীয় ঐ মুষ্টিমেয় উচ্চ বিত্ত শিক্ষিত শ্রেনীর Evil ghost রা সজ্ঞানে শুধু নিজেদের ভবিষ্যত নিরাপত্তার জন্য সেকেন্ড হোম ক্রয় করে স্বদেশের টাকা বিদেশে পাচার করছে।

চার্টার্ড বিমানে বা VVIP Status নিয়ে বীরদর্পে দেশত্যাগ করছে। আর শ্রমিক শ্রেনীর ঐ রেমিটেন্স যোদ্ধারা সর্বস্ব বিক্রি করে কষ্টে সৃষ্টে বিদেশ গমনের জন্য বিমান বন্দরে প্রবেশ করলে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য ব্যবহার এবং ইমিগ্রেশনের কর্তাব্যক্তিদের মাইক্রোস্কোপিক বিশ্লেষনে খুঁত বের করে,বাধ্যতামূলক অবৈধ টাকা পরিশোধ করে প্রবাসে চাকুরীস্হলে হন্তদন্ত হয়ে দৌড় ঝাপ দিচ্ছে !
আবার উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে দেশের মেধাবী সরকারী প্রকৌশলী গন পৃথিবীর সর্বাধিক ব্যয়ে ক্ষণভঙ্গুর সড়ক নির্মাণ,নিম্নমানের,ব্যয়বহুল ব্রীজ, উচ্চব্যয়ের কালভার্ট,দালান ইত্যাদি ক্ষণস্থায়ী সরকারী দালান নির্মান করে হাজার কোটি টাকা নিজেদের বিদেশী একাউন্ট স্ফীত করছে।
অন্যদিকে দেশের সেরা মেধাবী ডাক্তারগণ চিকিৎসেবাকে বানিজ্যিকিকরন করে বিদেশ থেকে কয়েকগুন উচ্চমূল্যের যন্ত্রপাতি ক্রয় দেখিয়ে, সর্বনিম্ন মানের পুরানো যন্ত্রপাতি আমদানী করে দেশের হাসপাতাল গুলোকে পঙ্গু করে দিয়েছে।

সরকার দেশের রাজস্ব ব্যবস্হার নৈরাজ্য দুর করতে শত কোটি টাকা ব্যয়ে যন্ত্রপাতি আনলে ও দেশের মেধাবী সিভিল সার্ভিস কাষ্টমসের লোকজন তা’ বন্দরে অকেজো করে রেখে দিয়েছেন।
আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এবং প্রশাসন রাজনীতিকরনের নামে একান্ত আজ্ঞাবহ বা তল্পীবাহকে পরিণত হয়েছে।

সাধারন মানুষ রাজনীতির নামে কুশিক্ষিত, দলবাজ, চাঁদাবাজ লোকদের দ্বারস্হ না হলে সরকারী কোন নিরাপত্তা প্রাপ্তির ধারে কাছে ও আসতে পারেন না। প্রতিটা রন্ধ্রে রন্ধ্রে ঘুনে পোকারা আশ্রয় নিয়েছে।

শিক্ষাব্যবস্হায় অধিকাংশ স্কুল ব্যবস্হাপনা কমিটিতে দলীয়করনের নামে সরকারী দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তারা, এলাকার নন ম্যাট্রিক বা স্বল্প শিক্ষিত সুযোগ সন্ধানী লোকদের হাতে সদস্য সভাপতি মনোনয়নের নজিরবিহীন ক্ষমতা অর্পন করেছেন। যারা কমিটিতে সরকারী বরাদ্ধ লোপাট,অনাবশ্যক মাতব্বরী এবং উচ্চ শিক্ষিত শিক্ষকদের সাথে দূর্ব্যহার করছেন ! সম্মানী ব্যক্তি মসজিদের ইমাম, মুয়াজ্জিন সাহেবকে উপযুক্ত সম্মান না দিয়ে নিজের সুবিধামতো ব্যবহার করছে।

সাধারন প্রশাসনের কর্মকর্তা উপজেলা এবং জেলা পর্যায়ে মন্ত্রী , এমপি, এমনকি দলের আতি পাতি নেতাদের প্রটোকল,অন্যায় আবদার মিটানোর জন্য সদা সর্বদা তৎপর থাকছেন।

সরকারের সদিচ্ছা বাস্তবায়নের জিরো টলারেন্স প্রতিশ্রুতি রুপায়নে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কতৃক ক্ষমতার অপপ্রয়োগে নিরীহ জনসাধারনকে হয়রানী, চাঁদাবাজী,ক্রস ফায়ার নামক লোমহর্ষক ঘটনাসমূহ, কক্সবাজারে প্রদীপ বাহিনীর হত্যাযজ্ঞ, বসুন্ধরার এমডির অপকর্ম, দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন সময়ের খুন-ধর্ষনের কাহিনী সিনেমার কল্পকাহিনীকে ও হার মানিয়েছে।

বিশ্ব ব্যাংকের সিদ্ধান্তকে চ্যালেন্জ জানিয়ে সরকারের সাহসী পদক্ষেপ, পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন, ঢাকায় মেট্রোরেল স্হাপন,ঢাকা চট্টগ্রামে নির্মিত এবং নির্মিয়মান ফ্লাই ওভার, বিভিন্ন সড়ক , মহাসড়ক সহ, সমুদ্রজয়, পার্বত্য শান্তি চুক্তি ইত্যাদি দৃশ্যমান উন্নয়ন কার্যক্রম বিশ্বব্যপী প্রশংসিত।
চাটুকার, তোষামোদকারী, অনুপ্রবেশ কারী সুবিধাভোগী লোকজন, নিরাপত্তা বলয়ের নামে সরকার প্রধানের নিকট মাঠ পর্যায়ের অনেক তথ্য গোপন করে যাচ্ছেন।
ফলে তৃণমূল পর্যায়ের দলবাজদের অপতৎপরতায় সাধারন জনগনের ভোগান্তি, গন অসন্তোষ হিসাবে কাজে লাগানোর জন্য, এক শ্রেনীর লোক উঠে পড়ে লেগেছে।এদের বিচরন প্রশাসন, বিচার, আইনশৃঙ্খলা, শিক্ষা প্রতিষ্টানসহ সর্বত্র বিরাজমান।

ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র এই অদৃশ্য শক্তি গুলো ধীরে ধীরে শক্তি সঞ্চয় করছে। দলীয় সমর্থন শক্তি প্রদর্শনের নামে তারা সরকারের বড় অর্জনগুলোকে ম্লান করে দিচ্ছে।

এসব Evil ghost রা সমাজ ও রাষ্ট্রের বিভিন্ন স্থরে দ্রুত ডালপালা বিস্তার করছে। ইস্যু সৃষ্টিতে বার বার ব্যর্থ হয়ে ও স্বাধীনতা বিরোধীরা সরকারী মুখোশে মাঠে নেমেছে।
শক্ত হাতে দৃঢ় চিত্তে অবিলম্বে রাষ্ট্র্র্রের মূল চালিকা শক্তিগুলোকে সক্রিয় করে মুখোশপরা দলবাজদের কুটচাল বন্ধ করা আবশ্যক।
পাশাপাশি সমাজের শিক্ষিত সচেতন মানুষের নিজের জায়গা থেকে সাহসী ভূমিকা রাখা দরকার। অন্যথায় দেশবাসী হতাশ হয়ে পড়বে এবং সমাজ ও রাষ্ট্রের এ জাতীয় Evil ghost রা অারো শক্তিশালী হয়ে উঠবে।

লেখক ঃ সরকারি কর্মকর্তা ও সমাজকর্মী

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

লক ডাউন পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি

যুক্তরাজ্যে করোনার মধ্যেই শিশুদের মাঝে নতুন রোগের হানা

ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়াবে বাংলাদেশ দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশন: ফিলিস্তিন ও বাংলাদেশ দূতাবাসে বিশেষ বৈঠক মামুন হাওলাদার

শয়তানের দুষ্টচক্র ও সামাজিক বিচারহীনতা

আপডেট সময় ০৯:১২:০৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৪ জুন ২০২১

ফয়ছল আহমেদ

ড: হেনরী কিসিন্জার এক সময় পরিহাস করে বাংলাদেশকে বলেছিলেন Bottomless Busked. কথাটা শুনতে গা জ্বালা করলে ও বর্তমান বাস্তবতা তার চেয়ে ও কঠিন। আমাদের দেশের GDP ঈর্ষনীয় (পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর তুলনায়) রেমিটেন্স নিয়ে আমরা গর্ব করি,গার্মেন্টস শিল্প লক্ষ লক্ষ তরুন তরুনীর আশার আলো,প্লাস্টিক বর্জের দূষনে, পাট বা সোনালী আঁশের কদর আবারো বন্ধ পাটকলগুলোয় লাভের সন্ধান দিচ্ছে।
মানুষের আয়, যান্ত্রিক সভ্যতার সুষ্টু ব্যবহার দেশের অর্থনীতির চাকাকে সম্মুখপানে ধাবিত করছে।তথাপি কিছু সংখ্যক উচ্চ বিত্ত Evil ghost or Evil mafia কৌশলে দেশের সিংহভাগ সম্পদ কুক্ষিগত করে সমানে বিদেশে টাকা পাচার করছে।

পাশাপাশি নিজের প্রভাব প্রতিপত্তির নির্লজ্জ অপব্যবহার করে সমাজে নানা ধরনের অপকর্ম যেমন -খুন, ধর্ষণ, জুলুম-নির্যাতন, টেন্ডারবাজি, সমাজের সাধারন নিরীহ মানুষকে ঠকিয়ে নিজের স্বার্থ হাসিল করা, ছলে বলে কৌশলে পদ-পদবি বাগিয়ে নিয়ে সমাজে নিজের কর্তৃত্ব জাহির করছে।

এছাড়াও অার এক শ্রেনীর Evil ghost ভিলেজ পলিটিক্স করে social injustice তৈরি করছে ও নেতৃত্বের লোভে সাধারন মানুষকে ব্যবহার করে সামাজিক অসংগতি সৃষ্টির মাধ্যমে ন্যায়বিচারকে কলুষিত করছে।

একদিকে দেশের রেমিটেন্স যোদ্ধারা বিদেশে কষ্টকর জীবনকে আলিঙ্গন করে দেশে প্রিয়জনের মুখে হাসি ফোটানোর প্রাণান্তকর প্রচেষ্টায় প্রকারান্তরে রেমিটেন্স প্রবাহ বৃদ্ধি, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ তথা দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করছে।
অন্যদিকে দেশীয় ঐ মুষ্টিমেয় উচ্চ বিত্ত শিক্ষিত শ্রেনীর Evil ghost রা সজ্ঞানে শুধু নিজেদের ভবিষ্যত নিরাপত্তার জন্য সেকেন্ড হোম ক্রয় করে স্বদেশের টাকা বিদেশে পাচার করছে।

চার্টার্ড বিমানে বা VVIP Status নিয়ে বীরদর্পে দেশত্যাগ করছে। আর শ্রমিক শ্রেনীর ঐ রেমিটেন্স যোদ্ধারা সর্বস্ব বিক্রি করে কষ্টে সৃষ্টে বিদেশ গমনের জন্য বিমান বন্দরে প্রবেশ করলে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য ব্যবহার এবং ইমিগ্রেশনের কর্তাব্যক্তিদের মাইক্রোস্কোপিক বিশ্লেষনে খুঁত বের করে,বাধ্যতামূলক অবৈধ টাকা পরিশোধ করে প্রবাসে চাকুরীস্হলে হন্তদন্ত হয়ে দৌড় ঝাপ দিচ্ছে !
আবার উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে দেশের মেধাবী সরকারী প্রকৌশলী গন পৃথিবীর সর্বাধিক ব্যয়ে ক্ষণভঙ্গুর সড়ক নির্মাণ,নিম্নমানের,ব্যয়বহুল ব্রীজ, উচ্চব্যয়ের কালভার্ট,দালান ইত্যাদি ক্ষণস্থায়ী সরকারী দালান নির্মান করে হাজার কোটি টাকা নিজেদের বিদেশী একাউন্ট স্ফীত করছে।
অন্যদিকে দেশের সেরা মেধাবী ডাক্তারগণ চিকিৎসেবাকে বানিজ্যিকিকরন করে বিদেশ থেকে কয়েকগুন উচ্চমূল্যের যন্ত্রপাতি ক্রয় দেখিয়ে, সর্বনিম্ন মানের পুরানো যন্ত্রপাতি আমদানী করে দেশের হাসপাতাল গুলোকে পঙ্গু করে দিয়েছে।

সরকার দেশের রাজস্ব ব্যবস্হার নৈরাজ্য দুর করতে শত কোটি টাকা ব্যয়ে যন্ত্রপাতি আনলে ও দেশের মেধাবী সিভিল সার্ভিস কাষ্টমসের লোকজন তা’ বন্দরে অকেজো করে রেখে দিয়েছেন।
আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এবং প্রশাসন রাজনীতিকরনের নামে একান্ত আজ্ঞাবহ বা তল্পীবাহকে পরিণত হয়েছে।

সাধারন মানুষ রাজনীতির নামে কুশিক্ষিত, দলবাজ, চাঁদাবাজ লোকদের দ্বারস্হ না হলে সরকারী কোন নিরাপত্তা প্রাপ্তির ধারে কাছে ও আসতে পারেন না। প্রতিটা রন্ধ্রে রন্ধ্রে ঘুনে পোকারা আশ্রয় নিয়েছে।

শিক্ষাব্যবস্হায় অধিকাংশ স্কুল ব্যবস্হাপনা কমিটিতে দলীয়করনের নামে সরকারী দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তারা, এলাকার নন ম্যাট্রিক বা স্বল্প শিক্ষিত সুযোগ সন্ধানী লোকদের হাতে সদস্য সভাপতি মনোনয়নের নজিরবিহীন ক্ষমতা অর্পন করেছেন। যারা কমিটিতে সরকারী বরাদ্ধ লোপাট,অনাবশ্যক মাতব্বরী এবং উচ্চ শিক্ষিত শিক্ষকদের সাথে দূর্ব্যহার করছেন ! সম্মানী ব্যক্তি মসজিদের ইমাম, মুয়াজ্জিন সাহেবকে উপযুক্ত সম্মান না দিয়ে নিজের সুবিধামতো ব্যবহার করছে।

সাধারন প্রশাসনের কর্মকর্তা উপজেলা এবং জেলা পর্যায়ে মন্ত্রী , এমপি, এমনকি দলের আতি পাতি নেতাদের প্রটোকল,অন্যায় আবদার মিটানোর জন্য সদা সর্বদা তৎপর থাকছেন।

সরকারের সদিচ্ছা বাস্তবায়নের জিরো টলারেন্স প্রতিশ্রুতি রুপায়নে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কতৃক ক্ষমতার অপপ্রয়োগে নিরীহ জনসাধারনকে হয়রানী, চাঁদাবাজী,ক্রস ফায়ার নামক লোমহর্ষক ঘটনাসমূহ, কক্সবাজারে প্রদীপ বাহিনীর হত্যাযজ্ঞ, বসুন্ধরার এমডির অপকর্ম, দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন সময়ের খুন-ধর্ষনের কাহিনী সিনেমার কল্পকাহিনীকে ও হার মানিয়েছে।

বিশ্ব ব্যাংকের সিদ্ধান্তকে চ্যালেন্জ জানিয়ে সরকারের সাহসী পদক্ষেপ, পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন, ঢাকায় মেট্রোরেল স্হাপন,ঢাকা চট্টগ্রামে নির্মিত এবং নির্মিয়মান ফ্লাই ওভার, বিভিন্ন সড়ক , মহাসড়ক সহ, সমুদ্রজয়, পার্বত্য শান্তি চুক্তি ইত্যাদি দৃশ্যমান উন্নয়ন কার্যক্রম বিশ্বব্যপী প্রশংসিত।
চাটুকার, তোষামোদকারী, অনুপ্রবেশ কারী সুবিধাভোগী লোকজন, নিরাপত্তা বলয়ের নামে সরকার প্রধানের নিকট মাঠ পর্যায়ের অনেক তথ্য গোপন করে যাচ্ছেন।
ফলে তৃণমূল পর্যায়ের দলবাজদের অপতৎপরতায় সাধারন জনগনের ভোগান্তি, গন অসন্তোষ হিসাবে কাজে লাগানোর জন্য, এক শ্রেনীর লোক উঠে পড়ে লেগেছে।এদের বিচরন প্রশাসন, বিচার, আইনশৃঙ্খলা, শিক্ষা প্রতিষ্টানসহ সর্বত্র বিরাজমান।

ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র এই অদৃশ্য শক্তি গুলো ধীরে ধীরে শক্তি সঞ্চয় করছে। দলীয় সমর্থন শক্তি প্রদর্শনের নামে তারা সরকারের বড় অর্জনগুলোকে ম্লান করে দিচ্ছে।

এসব Evil ghost রা সমাজ ও রাষ্ট্রের বিভিন্ন স্থরে দ্রুত ডালপালা বিস্তার করছে। ইস্যু সৃষ্টিতে বার বার ব্যর্থ হয়ে ও স্বাধীনতা বিরোধীরা সরকারী মুখোশে মাঠে নেমেছে।
শক্ত হাতে দৃঢ় চিত্তে অবিলম্বে রাষ্ট্র্র্রের মূল চালিকা শক্তিগুলোকে সক্রিয় করে মুখোশপরা দলবাজদের কুটচাল বন্ধ করা আবশ্যক।
পাশাপাশি সমাজের শিক্ষিত সচেতন মানুষের নিজের জায়গা থেকে সাহসী ভূমিকা রাখা দরকার। অন্যথায় দেশবাসী হতাশ হয়ে পড়বে এবং সমাজ ও রাষ্ট্রের এ জাতীয় Evil ghost রা অারো শক্তিশালী হয়ে উঠবে।

লেখক ঃ সরকারি কর্মকর্তা ও সমাজকর্মী